দিনাজপুর জেলা | ট্র্যাভেল নিউজ বাংলাদেশ

498

দিনাজপুর জেলা একসময় নামকরা জনপদ পুণ্ড্রবর্ধন এর একটি অংশ ছিল। তৎকালীন ইংরেজি শাসকদের “The British Administrative control” এখানে ১৭৮৬ সনে গঠিত হয়। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের সময় দিনাজপুরের একটি বড় অংশ পশ্চিমবঙ্গে চলে যায় এবং এর নাম হয় পশ্চিম দিনাজপুর জেলা। সেই জেলার জনগনেরা তেভাগা আন্দোলনে অংশগ্রহন করে এবং ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে অনন্য অবদান রাখে। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় দিনাজপুর জেলা ৬ এবং ৭ নম্বর সেক্টরে ছিল।

বর্তমানে দিনাজপুর জেলা বাংলাদেশের উত্তরপশ্চিমাঞ্চলের রংপুর বিভাগের একটি প্রসাশনিক অঞ্চল ।

নামকরনের ইতিহাস:-

জনশ্রুতি আছে জনৈক দিনাজ অথবা দিনারাজ দিনাজপুর রাজ পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা। তাঁর নামানুসারেই রাজবাড়ীতে অবস্থিত মৌজার নাম হয় দিনাজপুর। পরবর্তীতে ব্রিটিশ শাসকরা ঘোড়া ঘাট সরকার বাতিল করে নতুন জেলা গঠন করে এবং রাজার সম্মানে জেলার নাম করণ করে দিনাজপুর।

ভৌগোলিক সীমানা:-

দিনাজপুর জেলার উত্তরে ঠাকুরগাঁও, পঞ্চগড় ও নীলফামারী জেলা, দক্ষিণে জয়পুরহাট জেলা ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, পূর্বে রংপুর ও নীলফামারী জেলা এবং পশ্চিমে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের পশ্চিম দিনাজপুর (উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাদ্বয়) অবস্থিত। এই জেলার মোট আয়তন ৩৪৩৭.৯৮ বর্গ কিলোমিটার।

দিনাজপুর জেলায় মোট ১৩টি উপজেলা

দিনাজপুর সদর

বিরামপুর

খানসামা

বীরগঞ্জ

বোচাগঞ্জ

ফুলবাড়ী

চিরিরবন্দর

ঘোড়াঘাট

হাকিমপুর

কাহারোল

নবাবগঞ্জ

পার্বতীপুর ও

বিরল।

বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব:-

অধ্যাপক ইউসুফ আলী, স্বাধীনতার সনদ পাঠক, মুজিবনগর সরকারের ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী, বাংলাদেশের প্রথম শিক্ষামন্ত্রী;

আব্দুল্লাহ আল কাফি, বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ ও সমাজকর্মী, দিনাজপুর-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য;

আবুল হাসান মাহমুদ আলী, সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী;

এম আব্দুর রহিম, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সংবিধান রচনাকারী দলের সদস্য ও সাবেক সংসদ সদস্য;

কমরেড মোহাম্মদ ফরহাদ, স্বাধীন বাংলাদেশের একজন স্থপতি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সভাপতি ও সংসদ সদস্য;

খালেদা জিয়া, বাংলাদেশের সাবেক ও প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী;

খুরশীদ জাহান হক, সাবেক সংসদ সদস্য;

ডক্টর গোবিন্দ চন্দ্র দেব, ১৯৭১-এ শহীদ বুদ্ধিজীবী;

ধীমান ঘোষ, বাংলাদেশি ক্রিকেটার;

নিতুন কুন্ডু, বাংলাদেশি চিত্রশিল্পী, ভাস্কর, মুক্তিযোদ্ধা ও ব্যবসায়ী;

মাহবুবুর রহমান, বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান ও বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী স্থায়ী কমিটির সদস্য;

প্রেমহরি বর্মন, দিনাজপুর জেলা তফশিলী সম্প্রদায়ের নেতা, ব্রিটিশ ভারতের এমপি ও বঙ্গীয় প্রাদেশিক পরিষদের মন্ত্রী;

শহীদ ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান, (বীর উত্তম), ১৯৭১-এ শহীদ মুক্তিযোদ্ধা;

লিটন দাস, বাংলাদেশি ক্রিকেটার;

সুভাষ দত্ত, বাংলাদেশি চলচ্চিত্রশিল্পী, নির্মাতা ও অভিনেতা;

হাজী মোহাম্মদ দানেশ, অবিভক্ত ব্রিটিশ ভারতের কৃষক নেতা।

 

বিখ্যাত খাবার:-

লিচু

কাটারিভোগ চাল

চিড়া

পাপড়

বিখ্যাত স্থান:-

দিনাজপুর রাজবাড়ি

চেহেলগাজি মসজিদ ও মাজার

কান্তজিউর মন্দির

ঘোডাঘাট দুর্গ

সীতাকোট বিহার

সুরা মসজিদ

নয়াবাদ মসজিদ

রামসাগর

স্বপ্নপুরী

স্টেশন ক্লাব

কালেক্টরেট ভবন

সার্কিট হাউস ও জুলুমসাগর

সিংড়া ফরেস্ট

হিলি স্থলবন্দর

বিরল স্থলবন্দর

কিভাবে যাবেন:-

ঢাকার গাবতলী-কল্যাণপুর ও মহাখালী থেকে দিনাজপুরগামী বাসগুলি ছেড়ে যায়। বাস সার্ভিসের মধ্যে রয়েছে নাবিল পরিবহন, এস আর ট্রাভেলস, এস এ পরিবহন, হানিফ এন্টারপ্রাইজ, শ্যামলী পরিবহন ইত্যাদি।

ঢাকার কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা ট্রেনে সরাসরি এখানে আসা যায়। কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে প্রতিদিন একাধিক ট্রেন দিনাজপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।ঢাকা থেকে দিনাজপুর রেলে যেতে প্রায় ১০ ঘন্টা লাগে।