শাহ সুলতান কমর উদ্দিন রম্নমী মাজার।

790

বাংলাদেশে পীর, ফকির, অলি-আউলিয়ার আধ্যাত্মবাদের কাহিনী, কিংবদনত্মী আকারে মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে আছেহযরত শাহ সুলতান রম্নমী (র:) এর মাজার নেত্রকোণায় মদনপুরে তা সুবেদার সুজার সময়েই স্বীকৃত ছিল। সম্রাট শাহজাহানের পুত্র সম্রাট আওরঙ্গজেব ১৬৫৮ সালে যে দলিল খানা বগুড়ার মহাস‘ শাহ সুলতান নামক আউলিয়া পরিচিত ব্যক্তির মাজারের উপর সম্পাদন করেছেন তাতেও তিনি সুষ্পষ্ট ভাবে উলেস্নখ করেন মীর সৈয়দ সুলতান মাহমুদ মাহীসোয়ার এর নাম এবং শাহ সুজা মদনপুরের দলিলে উলেস্নখ করেন শাহ সুলতান রম্নমী এবং সৈয়দ সুর্খুল ও চলিস্নশ আউলিয়া, সুতরাং দু’ব্যক্তি যে ভিন্ন তার প্রমাণ ঐ দলিল সমূহেই পাওয়া যায়। তাই শাহ সুলতান যে প্রকৃতই শাহ সুলতান কমর উদ্দিন রম্নমী (র:) নেত্রকোণায় মদনপুরে সমাহিত এবং মীর সৈয়দ সুলতান মাহমুদ মাহীসোয়ার প্রকৃতই বগুড়ার মহাস‘ান গড়ের পার্শ্বে সমাহিত এতেও কোন ভিন্ন যুক্তি নেই।

শুধু শাহ সুলতান বলে যে বিভ্রানিত্মর সৃষ্টি হয় তা বিষয়টির প্রতি অজ্ঞতার কারণেই। তেমনি ঐতিহাসিক সাল নিয়েও বিভ্রানিত্ম রয়েছে। বিভিন্ন ঐতিহাসিক বিভিন্ন মত পোষণ করেছেন। ১৩০৩ইং সালে তরপ বিজয়ী সৈয়দ নাসির উদ্দিন সিপাহসালার সঙ্গে ১২ জন আউলিয়া তরপে এসেছিলেন, তন্মধ্যে হযরত শাহ সুলতান একজন বলে সৈয়দ হাসান ইমাম হোসেনী চিশতী সাহেব তার তরপের ইতিহাস নামক পুসত্মকে (পৃষ্ঠা-২৪) উলেস্নখ করেন। তবে একথা জোর দিয়ে বলা যায় যে হযরত শাহ সুলতান কমর উদ্দিন রম্নমী (র:) ৪৪৫ হিজরীতে মদনপুরে আগমন অথবা পরলোকগমন করেন। কেননা কোন ব্যক্তির সমাধির পার্শ্বে কোন সন তারিখ লেখা থাকলে সেটিকে তার জন্ম অথবা মৃত্যু তারিখ হিসাবে বুঝা যায়। কোন অবস‘াতেই তার আগমনের সন তারিখ বুঝায় না। জন্ম সন বললে বলতে হয় যেহেতু তার জন্ম এ অঞ্চলে নয় সুতরাং তার মৃত্যুর পর জন্ম তারিখ সংগ্রহ কঠিন ব্যাপার। তাই সহজেই বুঝা যায় এটি তার মৃত্যুর সন। আগমন ও পরলোক গমনের সনটি নিয়ে ঐতিহাসিক মতানত্মর থাকলেও শাহ সুলতান কমর উদ্দিন রম্নমী (র:) এর আগমনে নেত্রকোণা তথা পূর্ব মোমেনশাহীতে সর্বপ্রথম যে ইসলামের প্রভাব ও প্রসার সৃষ্টি হয় তাতে কোন ঐতিহাসিক মতভেদ নেই। স্মরণযোগ্য যে, হযরত শায়খ শাহ সুলতান কমর উদ্দীন রম্নমী এ দেশে আসার ২৫০ বছর পরে সিলেটে আগমন করেন হযরত শাহজালাল মজররদে ইয়ামনি (র:)। অতএব শাহ সুলতান (র:) কে শাহজালাল এর সাথী বলার কোন যুক্তিকতা নেই। যদিও সিলেটের অনেক গবেষক শাহ সুলতানকে শাহজালালের সঙ্গী বলে উলেস্নখ করেছেন।