নওগাঁ জেলা | ট্র্যাভেল নিউজ বাংলাদেশ

817

নওগাঁ জেলা আদিকাল হতেই বৈচিত্র ভরপুর । ছোট ছোট নদী বহুল এ জেলা প্রাচীনকাল হ- তেই কৃষি কাজের জন্য প্রসদ্ধি । কৃষি কাজের জন্য অত্যমত্ম উপযোগী এলাকায় বিভিন্ন অঞ্চল নিয়ে অসংখ্য জমিদার গোষ্ঠী গড়ে উঠে । এ জমিদার গোষ্ঠীর আশ্রয়েই কৃষি কাজ সহযোগী হিসেবে খ্যাত সাঁওতাল গোষ্ঠীর আগমন ঘটতে শুরু করে এ অঞ্চল । সাঁওতাল গোষ্ঠীর মতে এ জেলায় বসবাসরত অন্যান্য আদিবাসীদের মধ্যে মাল পাহাড়িয়া, কুর্মি,মহালী ও মুন্ডা বিশেষভাবে খ্যাত । নানা জাতি ও নানা ধর্মর মানুষের সমন্বয়ে গঠিত নওগাঁ জেলা মানব বৈচিত্র্য ভরপুর । অসংখ্য পুরাতন মসজিদ , মন্দির,গীর্জা ও জমিদার বাড়ি প্রমাণ কর নওগাঁ জেলা সভ্যতার ইতিহাস অনেক পুরাতন ।

নামকরনের ইতিহাস:-

নওগাঁ শব্দের উৎপত্তি হয়েছে ‘নও’(নুতুন) ও ‘গাঁ (গ্রাম) শব্দ থেকে শব্দ দুটি ফরাসী। নওগাঁ শব্দের অর্থ হলো নুতুন গ্রাম। ১৯৮৪ সালে ১ মার্চ নওগাঁ ১১ টি উপজেলা নিয়ে জেলা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। নওগাঁ প্রাচীন পৌন্ড্রবর্ধন ভূক্ত অঞ্চল ছিল। অন্য দিকে এটি আবার বরেন্দ্র ভূমিরও একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ । নওগাঁর অধিবাসীরা ছিল প্রাচীন পুন্ড্র জাতির বংশধর । নৃতাত্বিকদের মতে , পুন্ডরা বিশ্বামিত্র বংশধর এবং বৈদিক যুগের মানুষ । মহাভারত পুন্ড্রদের অন্ধ ঋষি দীর্ঘতমার ঔরষজাত বলি রাজার বংশধর বলে উলে­খ করা হয়েছে । আবার কারো মতে, বাংলার আদিম পাদদর বংশধর রুপে পুন্ড্রদের বলা হয়েছে । এদিক দিয়ে বিচার করলে নওগাঁ যে প্রাচীন জনগোষ্ঠির আবসসহল ছিল তা সহজেই বলা যায় ।

ভৌগোলিক সীমানা:-

এর উত্তরে ভারতের দক্ষিণ দিনাজপুর, দক্ষিণে বাংলাদেশের নাটোর ও রাজশাহী জেলা, পূর্বে জয়পুরহাট ও বগুড়া জেলা এবং পশ্চিমে ভারতের মালদহ ও বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা।

নওগাঁ জেলার মোট ১১টি উপজেলা

পত্নীতলা উপজেলা

ধামুরহাট উপজেলা

মহাদেবপুর উপজেলা

পোরশা উপজেলা

সাপাহার উপজেলা

বদলগাছী উপজেলা

মান্দা উপজেলা

নিয়ামতপুর উপজেলা

আত্রাই উপজেলা

রানীনগর উপজেলা

নওগাঁ সদর উপজেলা

কৃতি ব্যক্তিত্ব:-

মোহাম্মদ বায়তুল্লাহ – বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের প্রথম ডেপুটি স্পীকার;

তালিম হোসেন (১৯১৮ – ১৯৯৯) কবি ও গবেষক;

শিশির নাগ (১৯৩৬ – ৭ জুলাই ১৯৬০) – সাংবাদিক, ট্রেড ইউনিয়ন সংগঠক এবং বিপ্লবী

কমিউনিস্ট পার্টির কর্মী।

জেমস – সঙ্গীত শিল্পী;

আব্দুল জলিল – রাজনীতিবিদ;

আখতার হামিদ সিদ্দিকী – বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার।

বিখ্যাত খাবার:-

চাল

সন্দেশ

বিখ্যাত স্থান:-

কুশুম্বা মসজিদ

পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার

পতিসর রবীন্দ্র কাচারিবাড়ি

দিব্যক জয়সত্মম্ভ

মাহি সমেত্মাষ

বলিহার রাজবাড়ি

আলতাদীঘি

জগদলবাড়ি

হলুদবিহার

দুবলহাটি জমিদারবাড়ি

যেভাবে যাবেনঃ-

ঢাকা থেকে সরাসরি বাস কিংবা ট্রেইনে চেপে সরাসরি নওগাঁ জেলা শহরে পৌঁছানো যায়। ঢাকার গাবতলি,সায়দাবাদ,মহাখালি বাস টার্মিনাল গুলো থেকে বাস পাওয়া যায়।কমলাপুর স্টেশন থেকে ট্রেইন যাত্রা শুরু হয়। তবে রেল সংযোগ রাজশাহী পর্যন্ত। রাজশাহী থেকে বাসে করে যেতে হয়।