যেভাবে পাবেন তুরস্কের ভিসা

1686

যেভাবে পাবেন তুরস্কের ভিসা

বৈচিত্র্যময় পরিবেশ, রোমাঞ্চকর উৎসব, প্রাচীন ইতিহাস ও অপূর্ব সব খাবারের সমারোহ যে কোন দেশের থেকে তুরস্ককে আলাদা করে রাখে। এসব বৈচিত্র্যময়তার জন্যই তুরস্ককে উপভোগ করার আগেই তুরস্ক সম্পর্কে কিছু তথ্য আপনার জানা প্রয়োজন।ভিসার আবেদন, সহজ কিছু তুর্কী ভাষা শিখে নিন, বিভিন্ন মুদ্রার কিছু নগদ টাকা সাথে রাখুন।যেভাবে পাবেন তুরস্কের ভিসা

আবেদন প্রক্রিয়া

তুরস্কের ভিসা আবেদনের জন্য মূল ধাপ তিনটি। প্রথম ধাপটি হল ‘প্রি-অ্যাপ্লিকেশন’। এই ধাপে www.visa.gov.tr এই লিংকে গিয়ে একটি আবেদন ফরম পূরণ করতে হবে। আবেদন ফরমে জানতে চাওয়া বিষয়গুলোর সঠিক তথ্য দিয়ে আবেদন প্রক্রিয়া এগিয়ে নিতে হবে।

এই ধাপে আবেদনকারীর জাতীয়তা, পাসপোর্ট নম্বর, তুরস্ক ভ্রমণের উদ্দেশ্য এবং কোন দেশের তুরস্ক দূতাবাসে ভিসা আবেদন ফরম জমা দেবেন আবেদনকারী তা জানতে চাওয়া হয়।

এই তথ্যগুলো পূরণ হয়ে গেলে একটি চুক্তিনামা আসবে। যার সাথে ‘সম্মত’ হলে ভিসা আবেদনের পরবর্তী ধাপে যাওয়া যাবে। এই জায়গাটায় এসে ভিসা আবেদনের সাথে যেসব দলিল বা ডকুমেট প্রয়োজন তার একটি তালিকাও পাওয়া যাবে।

ছবি ২) আয় সম্পর্কিত দলিল ৩) বিমান বুকিং এর টিকেট ৪) হোটেল বুকিং অথবা আমন্ত্রণ পত্রের দলিল ৫) আবেদনকারী দেশে ফিরে আসবেন এই সম্ভাবনার স্বীকৃতিস্বরুপ প্রমাণাদি যেমন ব্যাংক স্টেটমেন্ট আর ৬) পরিচিতিমূলক চিঠি

‘প্রি-অ্যাপ্লিকেশন’ ধাপে যারা বিবেচিত হবেন তাদেরকে পরবর্তী ধাপ ই-ভিসা’র জন্য যোগ্য ঘোষণা করা হবে।

ই-ভিসার জন্য যোগ্য ঘোষিত হলে www.evisa.gov.tr এই লিংকে গিয়ে মূল ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে। প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ এই ধাপে আবেদনকারীকে তার পাসপোর্টও ভিসা অফিসে জমা দিতে হবে।

তৃতীয় আর শেষ ধাপটি হল সরাসরি সাক্ষাৎকার পর্ব। এই ধাপে আবেদনকারী যে ভিসা অফিসে ভিসার জন্য আবেদন করেছেন সেই অফিসের একজন কর্মকর্তার সাথে সরাসরি সাক্ষাৎ করবেন। এসময় দুই পক্ষের কথোপকথনে নির্ধারিত হবে আবেদনকারী ভিসা পাবেন কী পাবেন না।

সাধারণ তথ্যাবলী

১) বিভিন্ন দেশ থেকে তুরস্ক ভ্রমণের জন্য যেসব ক্যাটেগরিতে ভিসা দেওয়া হয় তা হল- ১)ভ্রমণ/ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে, ২) অফিসিয়াল ভিসা, ৩) শিক্ষার্থী বা শিক্ষা উদ্দেশ্যে ভিসা, ৪) কর্মী ভিসা, ৫) অন্যান্য ভিসা (যেমনঃট্রানজিট, চিকিৎসা ইত্যাদি)।

২) যে তারিখ পর্যন্ত একজন আবেদনকারী তুরস্কে অবস্থান করতে চান তার থেকে পরবর্তী ৬০ দিন পর্যন্ত আবেদনকারীর পাসপোর্টের মেয়াদ থাকা বাধ্যতামূলক।

৩) ভিসা পাওয়া একজন ব্যক্তি প্রতি ১৮০ দিনের মধ্যে ৯০ দিনের বেশি তুরস্কে অবস্থান করতে পারবে না। এর থেকে বেশি সময় তুরস্কে অবস্থান করতে হলে ঐ ব্যক্তিকে ‘স্বল্প মেয়াদে বসবাসের অনুমতি’ নিতে হবে।

৪) ভিসা পাওয়া ব্যক্তিকে তুরস্ক ভ্রমণের সময় ইন্সুরেন্স করিয়ে নিতে হবে।

৫) কূটনৈতিক পাসপোর্টধারী অথবা অফিসিয়াল পাসপোর্টধারী বাংলাদেশি নাগরিকদের তুরস্ক ভ্রমণের জন্য ভিসার প্রয়োজন নেই। তবে এর বাইরে সাধারণ পাসপোর্টধারী বাংলাদেশিদের তুরস্ক ভ্রমণে ভিসার প্রয়োজন হবে।

তবে কারও যদি সেনজেন ভিসা থাকে আর সেই ভিসার যদি মেয়াদ থাকে তাহলে সেই ভিসা দিয়েও তুরস্ক ভ্রমণ করতে পারবেন একজন বাংলাদেশি। কিন্তু যদি সেনজেন ভিসা না থাকলে তাহলে আবেদনকারীকে এর আগে যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য অথবা আয়ারল্যান্ডে ভ্রমণের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

শর্তগুলো পূরণ সাপেক্ষে একজন আবেদনকারীকে প্রাথমিক পর্যায়ে এক মাস মেয়াদী ‘সিঙ্গেল-এন্ট্রি’ ভিসা দেওয়া হবে।

আরও বিস্তারিত তথ্যের জন্য ঘুরে আসতে পারেন এই লিংকে-

আমাদের ভিসা প্রসেসিং ফি  ১৮০০টকা (অর্থ প্রদানের জন্য এখানে ক্লিক করুন)

 ভিসা আবেদন প্রোসেস সংক্রান্ত:

যোগাযোগ করুন আমাদের ভিসা সহায়ক ব্যবাস্হাপক এর সাথে

মোবাইল:(+88) 01978569293)

ওয়েবসাইট:  www.airwaysoffice.com
ই-মেইল: myvisaapplicationinfo@gmail.com

তুরস্কের আকর্ষণীয় জায়গাগুলির সংখ্যা এত বেশি যে আপনার নিজের দ্বারা কোনও ছুটির অনুষ্ঠান আঁকানো কেবল অসম্ভব, বিশেষত যদি কোনও ভ্রমণকারীদের এই দেশে থাকার অভিজ্ঞতা না থাকে। সুতরাং এয়ারওয়েজ অফিস নিম্নলিখিত ধরণের ট্যুর তৈরি করে।

  1. সারা বছর ভ্রমণ;
  2. Holidays ছুটির জন্য বুকিং;
  3. এয়ার টিকেটিং
  4. হোটেল বুকিং
  5. পেকেজ ট্যুর
  6. হেলিকপটার সার্ভিস
  7. টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং

ভিসা প্রসেসিং এর জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট

 

০১. পাসপোর্ট
০২. বিগত ছয় মাসের ব্যাংক এস্টেটমেন্ট ও সলভেন্সি
০৩. ট্রেড লাইসেন্স ( ইংলিশ ট্রানসেলেট এন্ড নোটারিজ)
০৪. চাকুরীজিবীদের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের ছুটির দরখাস্ত
০৫. প্রতিষ্ঠানের ব্লাংক প্যাড ও ভিজিটিং কার্ড
০৬. চাকুরীজিবীদের অফিস আইডি কার্ডের ফটোকপি
০৭. ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি
০৮. টি.আই.এন সার্টিফিকেট , ইনস্যুরেন্স (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)
০৯. ছবি (২কপি)
১০. স্পাউস ভোটার আইডি
১১. বাচ্চাদের স্কুল আইডি/জন্ম সনদের ফটোকপি
১২. ইউ. এস. এ, ইউ. কে ও ইউরোপের এর ক্ষেত্রে সম্পত্তির বিবরন

 

সাধারণত আবেদন নিষ্পত্তিতে ৩০ দিন লাগে। তবে স্বাস্থ্যপরীক্ষা বা অতিরিক্ত তথ্য প্রয়োজন হলে সময় বেশি লাগতে পারে।

 

তুরস্ক দূতাবাসের ঠিকানাঃ

বাড়ি নং-৭, রোড নং-২, বারিধারা, ঢাকা-১২১২

ফোন: ৮৮২২১৯৮, ৮৮১৩২৯৭, ৮৮২৩৫৩৬

ওয়েবসাইট- www.dakka.be.mfa.gov.tr

যেকোনো দেশের এয়ার টিকেট, হোটেল বুকিং, হেলিকপ্টার সার্ভিস, টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং এবং প্যাকেজ ট্যুর করে থাকি। বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুন নিচের ঠিকানায়।

zooFamily (community of aviation & travel)

রোড ৩, হোল্ডিং ৩, সুইট ৩৪,হ্যাপি আর্কদিয়া শপিং মল,ধানমণ্ডি,ঢাকা ১২০৫, বাংলাদেশ। মোবাইল নাম্বার: ০১৭৬৮২৩২৩১১

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here