এম ভি রফ রফ| ট্র্যাভেল নিউজ বাংলাদেশ

404

মেসার্স রাকিব ওয়াটার ওয়েজ কোম্পানীর এম ভি রফ রফ ২০০৫ সালে তৈরি হওয়ার পর থেকেই ঢাকা – চাঁদপুর – ইচলী রুটে চলাচল করছে। ঢাকা থেকে ছেড়ে চাঁদপুর হয়ে ইচলী চলে যায় মাঝে আর কোথাও কোন বিরতি বা স্টপেজ নেই লঞ্চটির।

 

যোগাযোগ

ঢাকার সদরঘাটে গিয়ে সরাসরি যোগাযোগ করা যায়। তাছাড়া মোবাইলের মাধ্যমেও যোগাযোগ করা যায়।

মোবাইল নম্বর:+৮৮-০১৭৬৫-৪৩০৪৯০

 

চলাচলের সময়সূচী

লঞ্চটি মাঝখানে ১ দিন বিরতি দিয়ে ঢাকা থেকে চাঁদপুর ও ইচালীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায় রাত ১২ টায়, ইচলী থেকে বেলা ১১ টা এবং চাঁদপুর থেকে দুপুর ১২ টায় ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে।

 

ধারণ ক্ষমতা

তিন তলা বিশিষ্ট এম ভি রফরফ লঞ্চের আয়তন ৫৭.৫৫ মিটার × ৯.৭৫ মিটার।  এটি প্রায় ৭০০ জন যাত্রী বহন করে থাকে। এখানে ডাবল কেবিন ২০টি, সিঙ্গেল কেবিন ১৯টি এবং ভিআইপি কেবিন ২টি রয়েছে। বিস্তারিত যাত্রী ধারণ ক্ষমতা নিম্নরুপ-

১ম ডেকের ধারণ ক্ষমতা ২০৫ জন
১ম শ্রেণী এসি চেয়ার ১০৩ জন
২য় ফ্লোর ভিআইপি ০৪ জন
২য় ফ্লোর কেবিন ৩১ জন
৩য় ফ্লোর কেবিন ২৮ জন
১ম ডেক সাইড বেঞ্চ ১৫৯ জন
২য় ডেক সাইড বেঞ্চ ১৭০ জন

এছাড়া ৩য় তলার পিছনে নামাজ আদায়ের জায়গা রয়েছে। এখানে একসাথে ৩০ জন নামাজ আদায় করতে পারে।

 

ভাড়ার হার

ঢাকা থেকে চাঁদপুর ও ইচলী দূরত্বের কিছু পার্থক্য থাকলেও ভাড়ার ক্ষেত্রে দুই জায়গায়ই সমান ভাড়া আদায় করা হয়ে থাকে। শিশুদের ক্ষেত্রে ১২ বছরের নিচে ফ্রি। ১২-১৫ বছরের শিশুদের বেলায় অর্ধেক ভাড়া নেওয়া হয়। নিম্নে ভাড়ার হার ও সুবিধা উল্লেখ করা হল:

শ্রেণী/কেবিন সুবিধা/বৈশিষ্ট্য ভাড়া
৩য় শ্রেণী ফ্লোরিং ৭০ টাকা
চেয়ার নিচতলা চেয়ার ১০০ টাকা
এসি চেয়ার চেয়ার এসি ১৫০ টাকা
সিঙ্গেল কেবিন ফ্যান ৩০০ টাকা
এসি সিঙ্গেল কেবিন এসি ৩৫০ টাকা
ডাবল কেবিন ফ্যান ৬০০ টাকা
এসি ডাবল কেবিন এসি ৭০০ টাকা
ভিআইপি এসি, সোফা, বাথরুম, টেলিভিশন, ওয়াড্রপ, টেবিল ১,৫০০ টাকা

মালামালের ভাড়ার নির্ধারিত কোন হার নেই। ওজন ও আকৃতি উপর এই ভাড়া নির্ধারিত হয়ে থাকে। যেমন ৫০ কেজির একটি বস্তার ভাড়া পরিশোধ করতে হয় ২০ টাকা।

 

নিরাপত্তা

এই লঞ্চে নিরাপত্তার দায়িত্বে সার্বক্ষণিক ৪ জন আনসার সদস্য নিয়োজিত রয়েছে। এছাড়া এই লঞ্চে লাইফ বয়া ৮২টি, ফায়ার বাকেট ২০টি এবং অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা ৬টি রয়েছে। লঞ্চের ভিতরে প্রত্যেক ছাদের কাছে ও সাইডে এগুলো সংরক্ষিত রয়েছে। তবে এই লঞ্চে কোন যাত্রী বীমা নেই এবং নেই কোন লাইফ জ্যাকেটও।

 

লঞ্চের ষ্টাফ

এম ভি রফ রফ- এ রয়েছে মাষ্টার ইনচার্জ ১ জন, মাষ্টার ২য় শ্রেণী ১ জন, কোয়াটার মাষ্টার ২ জন, ড্রাইভার ৬ জন। এছাড়া লস্কর, কেরানী, বয়, বাবুর্চী সহ মোট ২৮ জন কর্মচারী রয়েছে এখানে।

 

মালামালের ভাড়া

মালামালের বিবরণ পরিমাণ লঞ্চের চার্জ কুলির মজুরি
বিভিন্ন ধরনের লাগেজ, ব্যাগ রাস্তা থেকে স্টিমার বা লঞ্চ পর্যন্ত (একজন শ্রমিক) অনাধিক ১০ কেজি (১ টি ব্যাগ)

অনাধিক ২০ কেজি (১ টি ব্যাগ)

অনাধিক ৩০ কেজি (২ টি ব্যাগ)

অনাধিক ৪০ কেজি (১ টি ব্যাগ)

অনাধিক ৪০ কেজি (২ টি ব্যাগ)

অনাধিক ৬০ কেজি (২ টি ব্যাগ)

দরকার পড়ে না ১০ টাকা

২০ টাকা

৩০ টাকা

৩০ টাকা

৪০ টাকা

৫০ টাকা

ষ্টীল বা কাঠের আলমারি (একাধিক শ্রমিকের ক্ষেত্রে) প্রতিটি সর্বোচ্চ ওজন ১০০ কেজি ৩০০ টাকা ১০০ টাকা
কাপড়ের গাইড (একাধিক শ্রমিক) প্রতিটি ৫০ কেজি। ৫০ কেজির বেশি হলে ২০ কেজির জন্য ১৫০ টাকা ৫০ টাকা

১০ টাকা

কাঠের বা ষ্টীলের খাট প্রতিটি ৩০০ টাকা ১০০ টাকা
কাঠের, ষ্টিলের, বেতের চেয়ার, টেবিল প্রতিটি ১৫০ টাকা ২০ টাকা
ফ্রিজ সকল আয়তনের প্রতিটি ২৫০ টাকা ৫০ টাকা
টেলিভিশন সকল ধরনের প্রতিটি ১০০ টাকা ২০ টাকা
হাডওয়ার/ অন্যান্য মালামাল/ কার্টুন/ ফ্যান/ ঝুড়ি ৫০ কেজি প্রতিটি ২০০ টাকা ৪০ টাকা
মোটর সাইকেল (প্রতিটি) প্রতিটি ১০০ টাকা ২৫০ টাকা
সিলিং ফ্যান, টেবিলফ্যান প্রতিটি দরকার পড়ে না ২০ টাকা

 

নিরাপত্তা ও দুর্যোগ মোকাবেলা  

লঞ্চে আরোহিত যাত্রীদের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য আনসার বাহিনীর সদস্য ও নিজস্ব কর্মী নিয়োজিত রয়েছে। যেকোন দুর্যোগে যাত্রীদের জীবন রক্ষার জন্য ১২০ টি বয়া রয়েছে। এগুলো প্রতি ফ্লোরের দুই দিকে ছাদের অংশে এবং কেবিনের পাশে সারিবদ্ধভাবে সংরক্ষিত রয়েছে। প্রতিটি বয়া ৪ জন যাত্রী বহন করতে পারে।

 

ক্যান্টিন

লঞ্চে আরোহিত যাত্রীদের খাবার সুবিধার্থে লঞ্চের নিচতলায় একটি ক্যান্টিন রয়েছে। ক্যান্টিনে সাধারণ চা-বিস্কুটের পাশাপাশি ভাত-তরকারীও পাওয়া যায়। ক্যান্টিনে রুম সার্ভিস ব্যবস্থা বিদ্যমান।

 

চা (প্রতি কাপ) ৬/-
বিস্কুট (প্রতি পিস) ৪/-
কেক (প্রতি পিস) ১০/-
ভাত (প্রতি প্লেট) ১৫/-
সিদ্ধ ডিম ২০/-
ইলিশ মাছ (প্রতি পিস) ৯০/-
গরুর মাংস ভুনা (হাফ) ১২০/-
মুরগীর মাংস ১৬০/-
মিনারেল ওয়াটার (১ লিটার) ৩০/-
কোমল পানীয় (১ লিটার) ৭০/-
চিপস ১৫/-

 

নামাজ আদায়

লঞ্চে আরোহনকারী যাত্রীদের জন্য আলাদা স্থানে নামাজ আদায় করার ব্যবস্থা রয়েছে। লঞ্চের ৩য় তলায় এই স্থানটি সংরক্ষিত যেখানে একসাথে ১০ জন মুসল্লী নামাজ আদায় করতে পারেন। নামাজের বিছানা লঞ্চের ৩য় তলায় মাস্টার ব্রীজ – এ সংরক্ষিত থাকে।

 

টয়লেট

এই লঞ্চে মোট ৬ টি টয়লেট রয়েছে। কেবিন যাত্রীদের জন্য প্রতি ফ্লোরে ১ টি করে ২ টি টয়লেট রয়েছে এবং ডেক যাত্রীদের জন্য নিচতলায় মহিলা ও পুরুষদের জন্য আলাদা ২ টি করে ৪ টি টয়লেট রয়েছে।

 

বিবিধ

  • জরুরি প্রয়োজনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেবার ব্যবস্থা থাকে।
  • লঞ্চ চরে আটকে গেলে অনেক সময় অন্য লঞ্চের সাহায্য নেয়া হয়। অনেক সময় লঞ্চ উদ্ধারের জন্য যাত্রীদেরও এগিয়ে আসতে হয়।
  • দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার ক্ষেত্রে সাধারণত ২ নম্বর সতর্ক সংকেত পর্যন্ত লঞ্চ চলাচল করতে পারে। ৩ নম্বর সংকেত দেখানো হলে আর চলাচল করে না।