লিথুয়ানিয়ার  ভিসা আবেদন

1014

লিথুয়ানিয়ার  ভিসা আবেদন

 

উন্নতবিশ্বে উচ্চশিক্ষার জন্য সর্বপ্রথম যে বিষয়টি দরকার তা হল অর্থ। আমাদের দেশের অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী যথেষ্ট যোগ্য হওয়া সত্ত্বেও ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলোতে পড়াশোনা করার সুযোগ পায় না কারন, বেশীরভাগ শিক্ষার্থী সেখানকার প্রতিষ্ঠানগুলোর সম্পূর্ণ খরচ জোগাতে ব্যর্থ হয়। এ অবস্থায় আশার মশাল হয়ে দাঁড়িয়েছেন খোদ ইউরোপের-ই দেশ লিথুয়ানিয়া। ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় লিথুয়ানিয়ার জীবনযাত্রার ব্যয় অনেক কম। নূন্যতম খরচে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষা গ্রহণের অপার সম্ভাবনার দ্বার খুলে দিয়েছে বাল্টিক সাগর তীরের অপরূপ সুন্দর এই দেশটি।লিথুয়ানিয়ার  ভিসা আবেদন

ভাষাঃ

ইউরোপের অন্যান্য দেশে যেমন ব্যাচেলর লেভেলে পড়তে গেলে সে দেশের ভাষায় পড়া লাগে, সে তুলনায় লিথুয়ানিয়াতে ব্যাচেলর লেভেলে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ইংরেজি মাধ্যমে পড়ানো হয়ে থাকে, যা শিক্ষার্থীদের জন্য অনেক উপকারি।

পড়ার বিষয়ঃ

লিথুয়ানিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্যের শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে আকর্ষনীয় সব বিষয়। বিজনেস ম্যানেজমেন্ট, ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং, নার্সিং, হোটেল ম্যানেজমেন্টসহ রয়েছে শতাধিক বিষয়। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে বিষয় সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য দেয়া থাকে।

বিশ্ববিদ্যালয়ঃ

দেশটির প্রায় সবগুল বিশ্ববিদ্যালয় আন্তর্জাতিক মানের। শিক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য নামকরা কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম উল্লেখ করা হল-

  • Aleksandras Stulginskis University
  • Kaunas University of Technology
  • Vytautas Magnus University
  • Vilnius University
  • Klaipėda University
আলেকসান্দ্রস স্টুলগিনস্কিস বিশ্ববিদ্যালয়

ভাইটাউটাস ম্যাগনাস বিশ্ববিদ্যালয়

  • আলেকসান্দ্রস স্টুলগিনস্কিস বিশ্ববিদ্যালয়
  • কৌনাস প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
  • ভাইটাউটাস ম্যাগনাস বিশ্ববিদ্যালয়
  • ভিলনিয়াস বিশ্ববিদ্যালয়
  • ক্লাইপডা বিশ্ববিদ্যালয়

সেশনঃ

অন্যান্য সব দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মতো এখানেও বছরে ২টি সেশনে ভর্তি প্রক্রিয়া চলে। প্রতিবছর- সেপ্টেম্বর ও জানুয়ারি। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সেপ্টেম্বর এ বেশি সাবজেক্টে ভর্তির সুযোগ থাকে।

পড়াশোনার খরচঃ

লিথুয়ানিয়াতে প্রতিষ্ঠান ভিত্তিক টিউশন ফি’র পার্থক্য হয়ে থাকে। এখানে ব্যাচেলর লেভেলে টিউশন ফি

২ হাজার থেকে ৫ হাজার তিনশ ইউরো। মাস্টার্স লেভেলে ২,২০০ থেকে ৬,৫০০ ইউরো পর্যন্ত হয়ে থাকে। মাসিক খরচ ২০০ থেকে ৩০০ ইউরো। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডরমেটরিতে থাকলে প্রতি মাসে ১০০ ইউরো তেই আপনার থাকা খাওয়া হয়ে যাবে, যা ইউরোপের অন্য কোনও দেশে প্রায় অসম্ভব।

আবেদনপত্রের খরচঃ

বিশ্ববিদ্যালয় ভেদে এপ্লিকেশন ফি আলাদা হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে ১০০ ইউরো থেকে ২০০ ইউরো পর্যন্ত হতে পারে। যা আবেদন পত্র জমা দেয়ার আগেই জমা দিতে হবে এবং তা অফেরতযোগ্য।

ভর্তি প্রক্রিয়াঃ

প্রথমেই আপনার সকল মার্কসীট ও সার্টিফিকেট শিক্ষা বোর্ড থেকে সত্যায়িত করে নিন। এরপর শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সর্বশেষে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সত্যায়িত করে নিন। এরসাথে পাসপোর্টের ফটোকপি নোটারী করে তারপর আইন মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সত্যায়িত করতে হবে।

এবং সকল কাগজপত্র কমপক্ষে ৩/৪  কপি সত্যায়িত করবেনআর এসব কাজ শেষ করে সাথে সাথে ইন্ডিয়ার ভিসা করবেন। মোটকথা অফার লেটার হাতে আসার আগে যেনো আপনার ইন্ডিয়ার ভিসা হয়ে যায়।

লিথুয়ানিয়ায় যে কোনো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে গেলে প্রথমে আপনাকে এস কে ভি সি থেকে কোয়ালিটি এসেসমেন্ট সার্টিফিকেট নিতে হবে। সে জন্য ওয়েবসাইট থেকে ফরম ডাউনলোড করে তা পুরণ করে ১ কপি করে সত্যায়িত করা একাডেমিক ডকুমেন্টস আর পাসপোর্টের কপি সহ তা ডাকযোগে প্রেরন করতে হবে। ঠিকানাঃ

To the Centre for Quality Assessment in Higher Education
(A. Goštauto g. 12, LT-01108 Vilnius, Lithuania)

এরা কাগজপত্র যাচাই বাছাই করে সার্টিফিকেট প্রদান করতে সময় নিবে ২০-২৫ দিনের মতো। এই সার্টিফিকেট অন্যান্য কাগজপত্রের সাথে ভর্তির জন্য আপনাকে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রেরন করতে হবে। এর জন্য তারা কোনও ফি গ্রহন করে না। এটি সম্পূর্ণ ফ্রি।

 

ভর্তির জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রঃ

 

ভর্তির জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যা আপনার নির্ধারিত বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রেরন করতে হবে অথবা কিছু ক্ষেত্রে অনলাইনের এডমিশন পোর্টালে আপলোড করতে হবে।

  • ছবি ৩৫/৪৫
  • সম্পূর্ণ পুরন করা আবেদন পত্র
  • পাসপোর্টের সত্যায়িত কপি
  • সব একাডেমিক ডকুমেন্টস সত্যায়িত কপি
  • হাউজিং ফরম
  • মোটিভেশন লেটার
  • ইংরেজির দক্ষতা সার্টিফিকেট
  • এপ্লিকেশন ফি প্রদানের প্রমানপত্র

 

অফার লেটারঃ

 

সবকিছু প্রেরনের পর ৫ থেকে ৭ দিনের মধ্যে আপনি কন্ডিশনাল অফার লেটার পাবেন। এটি হাতে পাবার পর আপনাকে এক বছরের টিউশন ফি প্রদান করতে হবে। টিউশন ফি প্রেরনের ৩/৪  দিনের মধ্যেই আপনি ফাইনাল অফার লেটার পাবেন সাথে ভিসা আবেদনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ।

ভিসার জন্য আবেদনঃ

স্টুডেন্ট ভিসা আবেদনের জন্য আপনাকে সরাসরি দিল্লী তে অবস্থিত লিথুয়ানিয়ান এম্বেসিতে আবেদন করতে হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যা যা লাগবে

  • সম্পূর্ণ পুরনকরা ন্যশনাল ডি ভিসা আবেদন পত্র।
  • পাসপোর্ট
  • ২ কপি ছবি ৩৫/৪৫
  • অফার লেটার, মেডিয়েশন লেটার।
  • একোমোডেশন কনফার্মেশন।
  • এফিডেফিট অব ফাইনান্সিয়াল সাপোর্ট
  • সর্বশেষ ৩ মাসের ব্যংক স্টেটমেন্ট। কমপক্ষে ৪ থেকে ৫ লক্ষ টাকা ব্যালেন্স থাকতে হবে।
  • ব্যাংক সলভেন্সি সার্টিফিকেট
  • হেলথ ইনস্যুরেন্স ১২ মাসের। ২৯০০০ টাকা
  • কনফার্ম ওয়ান ওয়ে এয়ার টিকেট।

এবং সকল কাগজপত্রের এক সেট ফটোকপি সাথে রাখতে হবে। ইন্ডিয়া যাবার আগে এম্বেসির ওয়েবসাইট থেকে ভিসা ইন্টারভিউয়ের এপয়েন্টমেন্ট নিতে হবে। ইন্টার্ভিউয়ের পর ভিসা প্রসেসিং এর জন্য ১৪ দিন সময় লাগে, তবে অনেক সময় তা ৭-১০ দিনের মধ্যেই হয়ে যায়। ভিসা ইস্যু করা হয় ১ বছরের জন্য। এবং এই ভিসায় আপনি সেনজেনভুক্ত বাকি ২৫ টি দেশে ভ্রমণ করতে পারবেন।

আমাদের ভিসা প্রসেসিং ফি  ১৮০০টকা (অর্থ প্রদানের জন্য এখানে ক্লিক করুন)

৪.২স্বস্তির বিষয় এই যে, স্টুডেন্ট ভিসার জন্য লিথুয়ানিয়ান এম্বেসি কোন ভিসা ফি নেয় না। তবে এটা সত্যি যে যদি আপনার সকল কাগজপত্র ঠিক থাকে এবং ভিসা ইন্টারভিউ ভাল হয় তাহলে ভিসা হবে ধরে নিতে পারেন কনফার্ম।

এসব বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখুনঃ

 

১- বোর্ড থেকে সত্যায়িত করতে ৩-৫ দিন সময় লাগে। মুল কপি সহ ফটোকপি ৩/৪ সেট করাবেন, ব্যাংক ড্রাফট লাগবে ৫০০/৬০০ টাকা।

২- এরপর শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বোর্ড থেকে সত্যায়িত এডুকেশনাল ডকুমেন্ট মুল কপি সহ ৩ সেট ফটোকপি সত্যায়িত করাতে হবে। সকাল ১১ টার মধ্যে জমা দিতে হবে, ডেলিভারি পাবেন ২.৩০/৩ টার পর।

 ভিসা আবেদন প্রোসেস সংক্রান্ত:

যোগাযোগ করুন আমাদের ভিসা সহায়ক ব্যবাস্হাপক এর সাথে

মোবাইল:(+88) 01978569293)

ওয়েবসাইট:  www.airwaysoffice.com
ই-মেইল: myvisaapplicationinfo@gmail.com

৩- পাসপোর্টের নোটারাইজ ৩ কপি আইন মন্ত্রণালয় থেকে সত্তায়িত করাবেন, সাথে একটা নরমাল ফটোকপি ও রাখবেন কারণ এটা ওরা রেখে দিবে। জমা দিবেন অবশ্যই ১১ টার মধ্যে, ডেলিভারি পাবেন দুপুর ১ টার পর।

 

৪- এবার শিক্ষা বোর্ডের সত্যায়িত সব কাগজ এবং আইন মন্ত্রণালয় থেকে সত্যায়িত পাসপোর্টের কপি সব একসাথে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সত্যায়িত করাবেন। সকাল ১১ টার মধ্যে জমা দিতে হবে ডেলিভারি পাবেন ৩ টার পর। তবে জমা যদি ১১ টা থেকে দুপুর ১ টার মধ্যে হয় তাহলে তা ডেলিভারি পাবেন পরদিন। আসল কথা হচ্ছে লাইনে দাঁড়াতে হবে কমপক্ষে সকাল ৬টা থেকে ৭ টার মধ্যে কারন অনেক ভীড় হয়।

 

যেকোনো দেশের এয়ার টিকেট, হোটেল বুকিং, হেলিকপ্টার সার্ভিস, টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং এবং প্যাকেজ ট্যুর করে থাকি। বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুন নিচের ঠিকানায়।

zooFamily (community of aviation & travel)

রোড ৩, হোল্ডিং ৩, সুইট ৩৪,হ্যাপি আর্কেড শপিং মল,ধানমণ্ডি,ঢাকা ১২০৫, বাংলাদেশ। মোবাইল নাম্বার: ০১৭৬৮২৩২৩১১