গাইবান্ধা জেলা | ট্র্যাভেল নিউজ বাংলাদেশ

873

বৌদ্ধ, হিন্দু, মোঘল, পাঠান আমলসহ ইংরেজ শাসনামলের স্মৃতি বিজড়িত আমাদের এই
গাইবান্ধা জেলা বিভিন্ন শাসনামলে নানা সংগ্রাম-বিদ্রোহ এ অঞ্চলে সংঘটিত হয়েছে। গাইবান্ধা আদিতে কেমন ছিল সে বিষটি প্রথমে আলোচনা করা দরকার। বিভিন্ন সুত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্য  এব্যাপারে বেশ কিছু ধারনা দেয়। গাইবান্ধা জেলার মুল ভুখন্ড নদীর তলদেশে ছিল এবং কালক্রমে যা নদীবাহিত পলিতে ভরাট হয় এবং এতদঞ্চলে সংঘঠিত একটি শক্তিশালী ভুমিকম্পের ফলে নদী তলদেশের উত্থান ঘটে এবং স্থলভূমিতে পরিণত হয়। তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র ও যমুনা নদী বাহিত পলি মাটি দিয়েই গড়ে উঠেছে আজকের গাইবান্ধা।

নামকরনের ইতিহাস:-

গাইবান্ধা নামকরণ সম্পর্কে কিংবদন্তী প্রচলিত আছ, প্রায় পাচ হাজার বছর আগে মৎস্য দেশের রাজাবিরাটের রাজধানী ছিল গাইবান্ধার গোবিন্দগজ থানা এলাকায়। বিরাট রাজার গো-ধনের কোন তুলনা ছিল না। তার গাভীর সংখ্যা ছিল ষাট হাজার। মাঝে মাঝে ডাকাতরা এসে বিরাট রাজার গাভী লুণ্ঠন করে নিয়ে যেতো। সে জন্য বিরাট রাজা একটি বিশাল পতিত প্রান্তরে গো-শালা স্থাপন করেন। গো-শালাটি সুরক্ষিত এবং গাভীর খাদ্য ও পানির সংস্থান নিশ্চিত করতে। নদী তীরবর্তী ঘেসো জমিতে স্থাপন করাহয়। সেই নির্দিষ্ট স্থানে গাভী গুলোকে বেঁধে রাখা হতো। প্রচলিত কিংবদন্তী অনুসারে এই গাভী বেঁধে রাখার স্থান থেকে এতদঞ্চলের কথ্য ভাষা অনুসারে এলাকার নাম হয়েছে গাইবাঁধা এবং কাল ক্রমে তা গাইবান্ধা নামে পরিচিতি লাভ করে।

ভৌগোলিক সীমানা:-

গাইবান্ধা জেলার উত্তরে কুড়িগ্রাম ও রংপুর জেলা, দক্ষিণে বগুড়া ও জয়পুরহাট জেলা, পূর্বে জামালপুর জেলা, তিস্তা ও যমুনা নদী এবং পশ্চিমে রংপুর, দিনাজপুর ও জয়পুরহাট জেলা অবস্থিত।

গাইবান্ধা জেলা সাতটি উপজেলা

গাইবান্ধা সদর উপজেলা

সাদুল্লাপুর উপজেলা

ফুলছড়ি উপজেলা

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা

পলাশবাড়ী উপজেলা

সাঘাটা উপজেলা এবং

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা

বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব:-

শাহ্‌ আব্দুল হামিদ (স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম স্পীকার। )

আখতারুজ্জামান ইলিয়াস (সাহিত্যিক)

আবু হোসেন সরকার (পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশীক সরকারের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন)

মাহাবুব এলাহী রন্জু, বীর প্রতীক (মহান মুক্তিযুদ্ধে গাইবান্ধা এলাকার গৌরব রন্জু কম্পানীর কমান্ডার)

প্রফেসর ড. এম.আর সরকার (রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য)

আলহাজ্ব অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়া (ডেপুটি স্পিকার)

বিখ্যাত খাবার:-

রসমঞ্জরী

বিখ্যাত স্থান:-

বর্ধনকুঠি

নলডাঙ্গার জমিদারবাড়ি

বামনডাঙ্গার জমিদারবাড়ি

ভতরখালীর কাষ্ঠ কালী

রাজা বিরাট

ভবানীগঞ্জ পোস্ট অফিস ও বাগুড়িয়া তহশিল অফিস

বালাসী ঘাট

প্রাচীন মাস্তা মসজিদ

মীরের বাগানের ঐতিহাসিক শাহসুলতান গাজীর মসজিদ

কিভাবে যাবেনঃ-

সড়ক পথে ঢাকা হতে গাইবান্ধা যাওয়া যায়। ঢাকার গাবতলী, কল্যাণপুর, আব্দুল্লাহপুর থেকে গাইবান্ধাগামী বাস পাওয়া যায়। গাইবান্ধা জেলাতে কোন রেল সংযোগ নেই।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here