ঘুরে আসুন নরওয়ের সব দর্শনীয় স্থান। নরওয়ের বিমান টিকিট, ভাড়া, ফ্লাইট সহ সব তথ্য

877

ঘুরে আসুন নরওয়ের সব দর্শনীয় স্থান

 

২০১৭ সালে জতিসংঘের প্রতিবেদন অনুযায়ী বিশ্বের সবচেয়ে সুখি দেশ নিশীথ সূর্যের দেশ হিসেবে খ্যাত নরওয়ে। উত্তর ইউরোপের পশ্চিম দিকে চমৎকার এই উপকূলীয় দেশটির অবস্থান। রাজতন্ত্র দ্বারা পরিচালিত এই দেশটির আয়তন ৩৮৫,২৫২ বর্গ কিলোমিটার এবং জনসংখ্যা প্রায় ৫ মিলিয়ন। স্ক্যান্ডিনেভিয় দেশ গুলোর মধ্যে নরওয়ে কে বেশ গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। নরওয়ের রাজধানির ‘অসলো’ জনসংখ্যার দিকে থেকে ইউরোপের দ্বিতীয় বৃহত্তম। জীবন যাত্রার মানের দিকে থেকে অসলো কে বলা হয়ে থাকে পৃথিবীর অন্যতম ব্যায়বহুল এবং সমৃদ্ধ শহর। ঘুরে আসুন নরওয়ের সব দর্শনীয় স্থান। নরওয়ের বিমান টিকিট, ভাড়া, ফ্লাইট সহ সব তথ্য

সংস্কৃতির দিকে থেকেও নরওয়ে অনেক সমৃদ্ধ একটি দেশ। প্রাচীনকালে নরওয়েজিয়ান ভাইকিংসরা আসে পাশের এলাকার সমুদ্র শাসন করে বেড়াতেন। ভাইকিংসদের ইতিহাস অনেক সমৃদ্ধ। ভাইকিংসদের সাহসিকতাপূর্ণ ইতিহাস নিয়ে নিয়ে অনেক গল্প , নাটক, সিনেমা রচিত হয়েছে। ভাইকিংস নামের টিভি সিরিজটি দেখলে এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। এছাড়া যারা মেটাল ও ব্লাক মেটাল গান শুনে থাকেন তাদের কাছে নরওয়ের বিশেষ কদর আছে। বুরজুম, মেয়হিম, দিমূ বরগির ও অ্যাবাথ এর মত ব্লাক মেটাল  ব্যান্ডগুলো সারা পৃথিবী জুড়ে তুমুল জনপ্রিয়।

কখন বেড়াতে যাবেন নরওয়ে

ভ্রমনপ্রিয় মানুষদের জন্যে নরওয়ে হতে পারে একটি চমৎকার গন্তব্য। উত্তর ইউরোপের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের জন্য নরওয়ে আদর্শ। প্রধানত এটি একটি শীত প্রধান দেশ। তাই যখনই যাবেন, অবশ্যই সঙ্গে শীত মোকাবেলার কাপর চোপড়ও সাথে রাখবেন।

সাধারণত মার্চ থেকে জুলাই এই সময়টাই নরওয়ে ভ্রমণের জন্য আদর্শ হবে। এসময় তাপমাত্রা বেশ সহনীয় পর্যায়ে থাকে। এই সময়ে নরওয়েতে বসন্তকাল বিরাজ করে। এজন্যে নতুন কচি পাতা এবং ফুল সমৃদ্ধ প্রকৃতি এবং পরিস্কার নীল আকাশ উপভোগ করতে পারবেন।

নভেম্বর থেকে শীতকাল শুরু হয় এবং বেশিরভাগ সময় আকাশ মেঘলা থাকে। ভ্রমণের জন্যে এই সময়তা এড়িয়ে চলাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে।

কিভাবে যাবেন নরওয়ে তে

 

যেহেতু নরওয়ের অবস্থান ইউরোপে, সেক্ষেত্রে আকাশ পথই একমাত্র ভরসা। ঢাকা থেকে নরওয়ে ভ্রমণ করতে হলে প্রথমেই ভিসা নিয়ে নিতে হবে। পর্যটক হিসেবে আপনি ৯০ থেকে সর্বচ্চ ১৮০ দিনের ভিসা পেতে পারেন। বর্তমানে বাংলাদেশ এমব্যাসি অফ ডেনমার্ক (বাংলাদেশ ডেনমার্ক এম্বেসি) নরওয়ের হয়ে ভিসার ব্যাপার গুলো দেখাশোনা করে থাকে। তাই নরওয়ে ভিসার জন্যে ডেনমার্ক এম্বেসিতে আবেদন করতে হবেঃ

বাংলাদেশে ডেনমার্ক এমব্যাসির ঠিকানা

 

Bay´s Edgewater, 6th fl, Plot 12, North Avenue, Dhaka 1212

ফোন নম্বরঃ 02-55668570

এম্বেসি ওয়েবসাইটঃ http://bangladesh.um.dk/

অফিস খোলা – রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার

ঢাকা থেকে নরওয়ে বিমান ভাড়া

ঢাকা থেকে নরওয়ে এর দূরত্ব ৭,৩০০ কিলোমিটার এর মত। ভাড়া সাধারণত ৬০,০০ -৬১,০০০ বাংলাদেশী টাকা থেকে শুরু হয়। বিমান বাংলাদেশ, জেট এয়ারওয়েজ, কে এল এম রয়্যাল ডাচ, ইতিহাদ ও এমিরেটস এর মত বিমান সংস্থাগুলো ঢাকা নরওয়ে ফ্লাইট পরিচালনা করে থাকে।

উল্লেখ্য এই যে ঢাকা নরওয়ে নিমান ভাড়া অন্য রুটের মতই সদা পরিবর্তনশীল। যেকোন মুহূর্তে ভাড়া কমতে বা বাড়তে পারে। এই বিষয়ে বিমান সংস্থার সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে বিবেচিত হবে।

নরওয়ে বিমান টিকিট

 

বিমান টিকিট পাওয়া মোটেও সমস্যা হবে না। অনলাইনে ঘরে বসে এয়ারওয়েজ অফিস ওয়েবসাইট থেকে টিকিট কেটে নিতে পারেন। ওয়েবসাইট ঠিকানাঃ https://airwaysoffice.com/

পেমেন্ট করতে পারবেন যেকোন ক্রেডিট / ডেবিট কার্ড, বিভিন্ন মোবাইল ব্যাঙ্কিং ও বিকাশের মাধ্যমে। অথবা ক্যাশেও পেমেন্ট গ্রহণযোগ্য।

যে কোন প্রয়োজনে কল করতে পারেন +৮৮০ ৯৬১৭ ১১১ ৮৮৮ এই নম্বরে (সপ্তাহের যেকোন দিন)

কি কি দেখবেন নরওয়ে তে

নরওয়ে অত্যন্ত বৈচিত্র্যপূর্ণ একটি দেশ। এখানে সমুদ্র সৈকত, উপত্যাকা, পাহাড়, দ্বীপপুঞ্জ সহ বিভিন্ন ধরনের দর্শনীয় স্থান রয়েছে, যেগুলো আসলে কম সময়ে দেখে শেষ করা সম্ভব না। কেউ হয়ত সাগর, সৈকত ইত্যাদি ভালবাসেন। আবার কেউ বা পাহাড় পর্বত পছন্দ করেন। এরকম সবার চাহিদা মেটানোর মত যথেষ্ট বৈচিত্র্য নরওয়েতে আছে, একথা বলাই যায়। আমরা এরকম কিছু সেরা জায়গাগুলোর একটি তালিকা আপনাদের জন্যে তৈরি করেছি।

 

পশ্চিমের সামুদ্রিক খাড়ি

 

নরওয়ের সামুদ্রিক খাড়িগুলো অন্যতম আকর্ষণীয়। পায় পুরো দেশ জুড়েই এগুলোর অবস্থান। স্টাভাঙ্গার থেকে মল্ডে পর্যন্ত এদের সংখ্যা বেশী। পশ্চিম নরওয়ের সামুদ্রিক খাড়ি গুলো একটু যেন বেশীই নয়নাভিরাম। এখানকার পাহাড় ও পর্বতগুলো বেশী উঁচু আর খাড়ীগুলো এজন্যে বেশ গভীর। খারিগুলোর চুড়ায় দাঁড়ালে যে অনুভুতি আপনাকে স্পর্শ করবে তা অনেকটাই অপার্থিব!

 

বারগেন

নরওয়ের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর এবং দেশের অন্যতম প্রধান সমুদ্র বন্দর বারগেন। ১৫শ শতক থেকে শুরু করে এটি দেশের অন্যতম বানিজ্যকেন্দ্র এবং পর্যটনকেন্দ্র। এখানে পাবেন প্রাচীন ঐতিহ্য, অসাধারণ প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং বানিজ্যিক বন্দরের জাঁকজমকের অপূর্ব সমন্বয়। অন্যান্য শহরের মত এখানেও পাবেন পুরাতন সব ভবন যেগুলো অতীত নরওয়েজিয়ান কৃষ্টি এখনো বহন করে চলেছে।

 

লোফোতেন দ্বিপপুঞ্জ

প্রকৃতি ও সৈকত প্রেমীদের জন্যে লোফোতেন দ্বিপপুঞ্জ একটি আদর্শ গন্তব্য। নরওয়ের উত্তরাঞ্চলে একগুচ্ছ দ্বিপের সমন্বয়ে এই এলাকাটি পর্যটকদের কাছে অনেক জনপ্রিয়। এই দীপপুঞ্জকে নরওয়ের সবচাইতে সুন্দর স্থান বলা হয়ে থাকে। এখানকার সচ্ছ পানি ও উষ্ণ আবহাওয়া পর্যটকদের জন্য দারুণ আকর্ষণীয়।

 

নরওয়ের দক্ষিণ পশ্চিম এলাকায় অবস্থিত স্টাভাঙ্গার।  পৃথিবীর বেশ চমৎকার কিছু সমুদ্র সৈকত রয়েছে এখানে। এখানকার তাপমাত্রাও অনেকটা উষ্ণ। এজন্য শীত প্রধান দেশ থেকে সান বাথ বা সূর্য স্নান করতে আসা পর্যটকদের কাছে স্টাভাঙ্গারের সৈকতগুলো অনেক প্রিয়। শুধু সৈকত না, স্টাভাঙ্গার শহরটাও দেখতে বেশ চমৎকার। এখানে অনেকগুলো ক্যাথেড্রাল বা গির্জা আছে। মধ্যযুগীয় এই সব গির্জার মধ্যে স্টাভাঙ্গার গির্জাটি এখানকার তোঁ বটেই, গোটা দেশের মধ্যে সেরা বলে বিবেচিত হয় এর। আয়তন এবং দারুন শিল্পকর্ম আপনাকে মুগ্ধ করবেই।

 

নরওয়ের সেরা হোটেলের লিস্ট

নরওয়েতে আপনার কোন আত্মীয় সজন বা বন্ধুবান্ধব না থাকলে আপনাকে অবশ্যই কোন হোটেল খুজে বের করতে হবে। সেজন্যে আমরা পারি আপনাকে ঝামেলা থেকে বাচিয়ে সহজে হোটেল খুজে দিতে। ফ্লাইট এক্সপার্ট নরওয়ে তে আপনার জন্য সব চেয়ে কম খরচে ভাল হোটেলের ব্যাবস্থা করে দিতে পারবে। এরকম কিছু হোটেলের লিস্ট আমরা আপনার জন্য়ে তৈরি করেছি। আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে কল করতে পারেনঃ +৮৮০ ৯৬১৭ ১১১ ৮৮৮ এই নম্বরে

  • নরওয়ের সেরা হোটেলের তালিকা
  • অ্যাঙ্ককার এপার্টমেন্ট, অসলো
  • মক্সি হোটেল,
  • হোটেল স্কান্ডীক ফরনেবু, অসলো
  • অ্যাঙ্ককার হোটেল, অসলো
  • হোটেল র‍্যাডিসন ব্লু,
  • ম্যাজিক ব্লু, বারগেন
  • ওয়েস্টার্ন হোটেল, বারগেন
  • স্কান্ডীক নেপচুন, বারগেন
  • কওয়ালিটি এডভাড়গ গ্রেগ, বারগেন
  • থোন বারগেন ব্রাইজ্ঞে, বারগেন

 

তো ঘোরে আসুন প্রকৃতির অপার্থিব সৌন্দর্য এই দেশে

 

নরওয়ের ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

  • পাসপোর্ট (পাসপোর্টের মেয়াদ ৬ মাসের বেশি থাকতে হবে)
  • সাম্প্রতিক তোলা দুই কপি ছবি। সাদা পটভূমিতে ছবি তুলতে হবে, চোখে কালো চশমা বা মাথায় টুপি জাতীয় কিছু রাখা যাবে না আর ছবিতে অবশ্যই পুরো মুখমণ্ডল আসতে হবে।
  • ভ্রমণ শেষ হওয়ার পরও অন্তত ছয় মাস মেয়াদ আছে এমন পাসপোর্ট জমা দিতে হবে।
  • পাসপোর্টের ডাটা পেজগুলোর ফটোকপি যুক্ত করতে হবে।
  • অন্তত ৩০ হাজার ইউরো মূল্যমানের স্বাস্থ্য বীমা প্রয়োজন হবে।
  • জমা দেয়া প্রতিটি কাগজের মূলকপির সাথে একটি করে ফটোকপিও দিতে হবে।
  • আবেদনপত্রের ভাষা অথবা ফর্মের ঘরগুলো ইংরেজিতে পূরণ করতে হবে। সুইডিশ, ডেনিশ, অথবা নরওয়েজিয়ান ভাষাতেও পূরণ করা যাবে।
  • শিশুদের ক্ষেত্রে বাবা মা বা বৈধ অভিভাবকের অনুমতিপত্র জমা দিতে হবে। এছাড়া শিশুদের ভিসা আবেদনের ক্ষেত্রে বাবা-মা বা অভিভাবকে অবশ্যই দূতাবাসে উপস্থিত থাকতে হবে।
  • প্রতিটি ভিসার জন্য প্রায় ৬০ ইউরো সমপরিমাণ টাকা এডমিনিস্ট্রেশন ফি হিসেবে জমা দিতে হয়। ভিসা সাক্ষাতকারের পরপরই এই ফি দিতে হয়।

 ভিসা আবেদন প্রোসেস সংক্রান্ত:

যোগাযোগ করুন আমাদের ভিসা সহায়ক ব্যবাস্হাপক এর সাথে

মোবাইল:(+88) 01978569293)

ওয়েবসাইট:  www.airwaysoffice.com
ই-মেইল: myvisaapplicationinfo@gmail.com

বিজনেস ভিসার জন্য যেসব কাগজপত্র প্রয়োজন হবে:

  • ভ্রমণকারীর নরওয়ের থেকে কোম্পানির পাঠানো আমন্ত্রণপত্রের মূলকপি প্রয়োজন হবে। এই আমন্ত্রণপত্র অবশ্যই ইংরেজি ভাষায় হতে হবে।
  • ভ্রমণকারী বাংলাদেশের যে কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের তরফ থেকে ভ্রমণে যাচ্ছেন সে কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানের তরফে ভ্রমণের প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা করে লেখা চিঠি জমা দিতে হবে। প্রতিষ্ঠানের মালিকের জন্যও একই নিয়ম প্রযোজ্য।
  • বিগত তিন মাসে কোম্পানির ব্যাংক হিসাব বিবরণী।
  • কোম্পানির সার্টিফিকেট অফ ইনকর্পোরেশন অথবা মেমোরেন্ডাম এন্ড আর্টিকেলস অব এসোসিয়েশন (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।
  • ট্রেড লাইসেন্স
  • বাংলাদেশে এবং বাইরে নরওয়ের তথ্য (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।
  • ম্যারেজ সার্টিফিকেট, বার্থ সার্টিফিকেট এবং সন্তান সন্ততির তথ্য (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)
  • নরওয়ের আয়োজিত বাণিজ্য মেলায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে আরও অতিরিক্ত কিছু কাগজপত্র প্রয়োজন হবে:
    – হোটেলের ঠিকানাসহ হোটেল রিজার্ভেশন এবং
    –  স্টল বরাদ্দ হয়ে থাকলে এক্সিবিটর পাস।

 

নরওয়ের সেনজেন ভিসার জন্য চার্জ (বিজনেস ভিসার জন্য):

ভিসা ভিসা ফী
সেনজেন ভিসা ৬৫০০ টাকা
দীর্ঘ দিন অবস্থানের জন্য ৬৫০০ টাকা
শিশুদের জন্য (৬ – ১২ বছর) ৩৮০০ টাকা
৬ বছরের ছোট শিশুদের জন্য কোন ভিসা ফী লাগবে না

 

 

বন্ধুবান্ধব বা পরিবারের সদস্যের সাথে দেখা করতে যেতে যেসব কাগজপত্র প্রয়োজন হবে:

  • যার সাথে দেখা করতে যাওয়া হচ্ছে তার সাক্ষরিত গ্যারান্টর ফরম,
  • ম্যারেজ সার্টিফিকেট, বার্থ সার্টিফিকেট এবং সন্তান সন্ততির তথ্য (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে),
  • হোটেল বুকিং (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)। হোটেল বুকিং কনফার্মেশনের ই-মেইল প্রিন্ট আউট গৃহীত হয় না।
  • অন্তত বিগত তিন মাস সময়কালে ব্যক্তিগত হিসাব বিবরণী,
  • ভ্রমণকারী যার সাথে দেখা করতে যাচ্ছেন তার সাথে সম্পর্কর প্রমাণপত্র এবং
  • ফ্লাইট রিজার্ভেশন কপি।

 

ভ্রমণ ভিসার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র:

  • হোটেল বুকিং (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)। হোটেল বুকিং কনফার্মেশনের ই-মেইল প্রিন্ট আউট গৃহীত হয় না।
  • ভ্রমণকারী কোন কোন জায়গায় ভ্রমণ করতে চলেছেন তার বিস্তারিত।
  • ম্যারেজ সার্টিফিকেট, বার্থ সার্টিফিকেট এবং সন্তান সন্ততির তথ্য (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।
  • অন্তত বিগত তিন মাস সময়কালে ব্যক্তিগত হিসাব বিবরণী।

 

অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য:

  • নরওয়ের ভ্রমণের নির্ধারিত তারিখের চার থেকে ছয় সপ্তাহ আগে ভিসা আবেদনপত্র জমা দেয়া উচিত।
  • সাধারণত ১২-১৫ কর্মদিবসের মধ্যেই নরওয়ের ভিসা ইস্যু হয়ে যায়। তবে কখন কখন ১ মাস পর্যন্ত লাগতে পারে।
  • ভিসা ইস্যু হওয়ার পর পাসপোর্ট সংগ্রহের সময়ই ভিসা কিভাবে দেয়া হয়েছে সেটা দেখে নেয়া উচিত। কোন সমস্যা থাকলে সাথে সাথেই ভিসা কাউন্টারে জানাতে হবে।
  • শুধু ভিসা আবেদনের সময়ই নয়, নরওয়ের প্রবেশের সময়ও আর্থিক সামর্থ্যের প্রমাণ দেখাতে হয়। কারণ সেনজেন ভিসাই নরওয়ের প্রবেশের একমাত্র নিশ্চয়তা নয়। তাই আর্থিক সামর্থ্যের প্রমাণ ভ্রমণের সময় সাথে রাখতে হবে।

যেকোনো দেশের এয়ার টিকেট, হোটেল বুকিং, হেলিকপ্টার সার্ভিস, টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং এবং প্যাকেজ ট্যুর করে থাকি। বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুন নিচের ঠিকানায়।

zooFamily (community of aviation & travel)

রোড ৩, হোল্ডিং ৩, সুইট ৩৪,হ্যাপি আর্কেড শপিং মল,ধানমণ্ডি,ঢাকা ১২০৫, বাংলাদেশ। মোবাইল নাম্বার: ০১৭৬৮২৩২৩১১

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here