এম. ভি ফরহান-১| ট্র্যাভেল নিউজ বাংলাদেশ

268

এম. ভি ফরহান-১ ও ২  লঞ্চটি ঢাকা চরফ্যাশন রুটে চলাচল করে। সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে গিয়ে পুরো লঞ্চটি রিজার্ভ করা যায়।

 

যোগাযোগ

  • যে কোন তথ্যের জন্য সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে যোগাযোগ করা যায়।
  • ফোন নম্বর: +৮৮-০১৭৩২-১৮৪১৩২।

 

যাত্রার সময়

  • সন্ধ্যা ০৬.৪৫ মিনিটে ঢাকার সদরঘাট থেকে লঞ্চটি চরফ্যাশনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। সকাল ০৬.০০ টায় চরফ্যাশনে পৌঁছে যায়।
  • চরফ্যাশন থেকে বিকাল ০৪.০০টায় ঢাকার সদরঘাটের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে এবং সকাল ০৬.০০ টায়  ঢাকা পৌঁছে।
  • ঢাকার সদরঘাট টার্মিনাল থেকে একদিন পর পর চরফ্যাশনের উদ্দেশ্য ছেড়ে যায়।

 

কেবিন বুকিং

  • ঈদের সময় কেবিন বুকিংয়ের জন্য সরাসরি যোগাযোগ করতে হয় । ফোনে বুকিং দেওয়া যায় না ।
  • ঈদ ব্যতীত অন্য সময়ে ফোনে কেবিন বুকিং দেওয়া যায় । ফোনে বুকিং দিলে লঞ্চ ছাড়ার কমপক্ষে ১ ঘন্টা ৩০ মিনিট আগে লঞ্চে উপস্থিত থাকতে হয়।

 

ভাড়া

  • লঞ্চের কেবিনগুলোতে ধারনক্ষমতার অতিরিক্ত প্রত্যেক যাত্রীর জন্য একটি করে ডেকের টিকেট সংগ্রহ করতে হয়।

 

শ্রেণী ধারনক্ষমতা ভাড়া
ডেক ২০০/-
সিংগেল কেবিন ০১ ৭৫০/-
ডাবল কেবিন ০২ ১৫০০/-
ভিআইপি কেবিন ০২ ২০০০/-

 

 

মালপত্র নেয়া

  • সদরঘাটে লঞ্চ পর্যন্ত মালপত্র নেবার জন্য কুলিকে মজুরি দিতে হয়। তারপর লঞ্চের জন্য আলাদা মাশুল দিতে হয়।
  • ১০ কেজি সীমার মধ্যে ১টি ব্যাগের জন্য কুলির মজুরি ১০ টাকা। ২০ কেজি সীমার একটি ব্যাগের জন্য কুলির মজুরি ২০ টাকা। ৩০ কেজি সীমার দুইটি ব্যাগের জন্য মজুরি ৩০ টাকা। ৪০ কেজি সীমার একটি ব্যাগের মজুরি ৩০ টাকা। ৪০ কেজি সীমার দুইটি ব্যাগের মজুরি ৪০ টাকা এবং ৬০ কেজি সীমার দুইটি ব্যাগের মজুরি ৫০ টাকা। ১০০ কেজি সীমার মধ্যে আসবাব পরিবহনের জন্য কুলিদের ১০০ টাকা এবং লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে ৩০০ টাকা চার্জ দিতে হয়।
  • কাপড় ৫০ কেজি সীমার মধ্যে কুলিকে ৫০ টাকা এবং লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে ১৫০ টাকা দিতে হয়। আর কুলির জন্য অতিরিক্ত প্রতি ২০ কেজির জন্য ২০ টাকা।
  • কাঠের বা ষ্টীলের খাট প্রতিটির জন্য ৩০০ টাকা এবং কুলিকে ১০০ টাকা দিতে হয়। কাঠের,ষ্টিলের, বেতের চেয়ার,টেবিল প্রতিটির জন্য লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে ১৫০ টাকা এবং কুলিকে ২০ টাকা দিতে হয়।
  • যেকোন আয়তনের ফ্রিজের জন্য ২৫০ টাকা এবং কুলিকে ৫০ টাকা এবং সকল ধরনের টেলিভিশনের ক্ষেত্রে প্রতিটির জন্য লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে ১০০ টাকা এবং কুলিকে ২০ টাকা দিতে হয়।
  • হার্ডওয়্যার/ অন্যান্য মালামাল/ কার্টন/ ফ্যান/ ঝুড়ি প্রতিটির জন্য ৫০ কেজি সীমায় লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে ২০০ টাকা এবং কুলিকে ৪০ টাকা দিতে হয়।
  • মোটর সাইকেল প্রতিটির জন্য লঞ্চ কর্তৃপক্ষকে ১০০ টাকা এবং কুলিকে ২৫০ টাকা দতে হয়।
  • সিলিং ফ্যান,টেবিল ফ্যান এ জাতীয় জিনিসপত্র প্রতিটির জন্য কুলিকে ২০ টাকা দিতে হয়।

 

বিবিধ

  • জরুরি প্রয়োজনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেবার ব্যবস্থা থাকে।
  • লঞ্চ চরে আটকে গেলে অনেক সময় অন্য লঞ্চের সাহায্য নেয়া হয়। অনেক সময় লঞ্চ উদ্ধারের জন্য যাত্রীদেরও এগিয়ে আসতে হয়।
  • দূর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার ক্ষেত্রে সাধারণত ২ নম্বর সতর্ক সংকেত পর্যন্ত লঞ্চ চলাচল করতে পারে। ৩ নম্বর সংকেত দেখানো হলে আর চলাচল করে না।
  • টার্মিনালে প্রবেশের পূর্বে কোন প্রকারের সমস্যায় পড়লে পুলিশ ফাড়িঁতে যোগাযোগ করা যায়।
  • যোগাযোগের নম্বর: ০২-৭১১৬২৭২