ইন্ডিয়ান ভিসা আবেদনের নিয়ম

975

ইন্ডিয়ান ভিসা আবেদনের নিয়ম

ভারতীয় ভিসা করতে চান? অনেকেই ভিসা করতে গিয়ে ঝামেলায় পড়েন। ভিসার নিয়ম নীতিতে কিছু পরিবর্তন এসেছে। সহজে ভিসা করার সব পদ্ধতি জেনে নিতে পারেন এ indian visa application লেখা থেকে।

প্রথমেই জেনে নিন, ভারতীয় ভিসা পাওয়ার জন্য এখন থেকে আর ই-টোকেন লাগবে না। দিতে হবে না সাক্ষাতকারও। মানুষের ভোগান্তীরও অবসান ঘটছে। সহজেই মিলবে ভারতীয় ভিসা।indian visa application এর জন্য অনলাইনে যে কোনো সময় আবেদন করা যাবে। অনলাইনে আবেদনের প্রিন্ট কপি, পাসপোর্ট ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ভিসা আবেদন কেন্দ্রে জমা দিয়ে আসতে হবে। এরপর মোবাইলে মেসেজ দিয়ে জানিয়ে দেওয়া হবে ভিসা প্রদানের তারিখ। রাজধানীর সব ভিসাপ্রার্থীর জন্য থাকবে একটিই আবেদন কেন্দ্র।

সম্প্রতি রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কে সমন্বিত ও অত্যাধুনিক ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে। সুবিশাল এই ভিসা আবেদন কেন্দ্রে সর্বাধিক সুবিধা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে।

ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনের অ্যাটাশে কর্মকর্তা রঞ্জন মণ্ডল বলেছেন, ‘ই-টোকেন সংগ্রহ ও সাক্ষাতকারের প্রয়োজন হবে না। এখন থেকে সরাসরি অনলাইনে আবেদন করেই ভিসা পাওয়া যাবে। নতুন ভিসা কেন্দ্রটিতে প্রয়োজনীয় সব সেবার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। প্রায় ১৯ হাজার স্কয়ারফিট শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে একসঙ্গে ৭০০ জন বসতে পারবেন। প্রতিদিন পাঁচ হাজার ভিসা দেওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।’

এর আগে অনলাইনে আবেদনের জন্য কম্পিউটারে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করে ই-টোকেন সংগ্রহ করতে হতো। নির্ধারিত সময় এই টোকেন সংগ্রহে অনেকেই ব্যর্থ হতেন। ফলে কম্পিউটারের দোকানে গিয়ে টাকার বিনিময়ে ই-টোকেন সংগ্রহ করতেন ভিসা প্রত্যাশীরা। অনেক সময় ফরম পূরণ করেও ই-টোকেন মিলতো না। ই-টোকেন সংগ্রহের পর রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার ভিসাকেন্দ্রগুলোতে লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে আবেদন জমা দিতে হতো ভিসা প্রত্যাশীদের। এ পরিস্থিতি পাল্টাতেই নতুন ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জানানো হয়, আবেদন জমা দেওয়ার জন্য রয়েছে ৪৮টি কাউন্টার। মুক্তিযোদ্ধা, সিনিয়র সিটিজেন ও নারীদের জন্য আলাদা কাউন্টার রয়েছে। এ ছাড়া অপেক্ষমাণ ভিসা আবেদনকারীদের জন্য বিল পরিশোধ করে কফি এবং কোমল পানীয় ভেন্ডিং মেশিন, খাবার দোকানসহ বিভিন্ন সেবা নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। ভিসা প্রার্থীদের সুবিধার জন্য ১৮ বছরের নিচে ও ৬৫ বছরের বেশি বয়সীদের পাঁচ বছরের ভিসা দেওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। উদ্বোধনী দিনে কয়েকজনকে ভিসাও দেওয়া হয়েছে দুই দেশের পক্ষ থেকে।

শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ধাপগুলো কি কি

১. আবেদন ফর্ম রেডি করা (পুরণ করা, ছবি আর স্বাক্ষর দেয়া)

২. প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি সংগ্রহ

৩. ভিসা আবেদন ফি পরিশোধ করা

৪. ভিসা আবেদন জমা দেয়া

৫. পাসপোর্ট সংগ্রহ বা ফেরত নেয়া।

মনে রাখবেন এখন কোন কেন্দ্রেই কোন ধরণের ভিসার জন্যই অ্যাপয়েন্টমেন্ট বা ইটোকেন লাগে না

 ইন্ডিয়ান ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

১। পাসপোর্ট (নূন্যতম ৬ মাস মেয়াদ থাকতে হবে) ।
২। ছবি ১ কপি রঙ্গিন (২X২ সাইজ,ব্যাকগ্রাউন্ড সাদা)।
৩। বিদ্যুৎ বিল অথবা যেকোনো বিলের একটি কপি ।
৪। ন্যাশনাল আইডি কার্ডের কপি অথবা জন্ম সনদ কপি ।
৫। ট্রেড লাইসেন্স (ব্যাবসায়ীদের জন্য)।
৬। অফিস এন,ও,সি লেটার (চাকুরীজীবীদের জন্য)।
৭। আগে ইন্ডিয়া যাওয়া থাকলে,সেই ভিসার কপি ।
৮। ব্যাংক ষ্টেটম্যান্ট নূন্যতম ৬ মাসের,ব্যালেন্স কমপক্ষে ৩০,০০০ টাকা অথবা ডলার এন্ড্রোস রশিদ ।
৯। স্টুডেন্টদের জন্য স্টুডেন্ট আইডি কার্ডের কপি ।
১০। সাথে স্ত্রী থাকলে তার পাসপোর্ট,ছবি,ন্যাশনাল আইডি কার্ডের কপি,ম্যারেজ সার্টিফিকেট ।
১১। সাথে ছেলে-মেয়ে থাকলে তাদের পাসপোর্ট,ছবি, জন্ম সনদ ও স্কুলের আইডি কার্ড কপি

১২। কোন বর্ডার দিয়ে যাবেন তা লিখে দিতে হবে।

১. ভারতীয় ভিসার আবেদন ফরম প্রস্তুত করা

আবেদনপত্র পুরন করার আগে আপনার ছবির একটা সফট কপি লাগবে যেটা আপনাকে একেবারে শেষ ধাপে আপলোড করতে হবে। তাই আগে থেকেই রেডি রাখুন। ওদের মতে ডিজিটাল ছবি ও একটি রঙ্গীন ছবি (উভয় ছবিই একই হতে হবে এবং তিন মাসের কম সময়ের মধ্যে তোলা হতে হবে। চাইলে আবেদন ফরম প্রস্তত করার জন্য যোগাযোগ করতে পারেন আমাদের এয়ারওয়েজ অফিসে্‌ আমরা ভারতীয় ভিসার আবেদন ফরম প্রস্তুত ০১৮৮০১৫৫৫৭৪

. প্রয়োজনীয় কাগজপত্রাদি সংগ্রহ

যেসব কাগজপত্র পাসপোর্ট ও ফর্মের সাথে দিতে হবে তা উপরে সংক্ষপে বলা হয়েছে। এখানে বিস্তারিত তুলে ধরা হল। আপনি অফিয়াল ওয়েবসাইট হতেও দেখে নিতে পারেন এখান থেকে

. ভিসা আবেদন ফি পরিশোধ করা

ইন্ডিয়ান ভিসা ফি জমা দেয়া এখন খুবই সহজ। আপনি নিজে ঘরে বসে ইন্ডিয়ান ভিসা ফি জমা দিতে পারেন। এর জন্য এই লিংকে গিয়ে বিস্তারিত পুরন করে বিভিন্ন পেমেন্ট অপশনের যেকোন একটা দিয়ে পে করতে পারবেন। পেমেন্ট অপশন গুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে বিকাশ, রকেট, DBBL Nexus, দেশি বিদেশি ক্রেডিট/ডেবিট কার্ড ইত্যাদি। কিভাবে পুরো প্রক্রিয়াটা শেষ করবেন তার জন্য IVAC বিস্তারিত একটা ম্যানুয়াল রেডি করে রেখেছে, সেটা দেখুন  এখানে। ৮০০ টাকা ফি আর পেমেন্ট চার্জসহ ৮২৪ লাগবে।

তবে যেভাবেই ফি দিন না কেন একটা জিনিস খেয়াল রাখবেন ভিসা ফি পেমেন্ট করার পর দিনের মাঝেই ফর্ম জমা দিতে হবে। না দিলে পেমেন্ট বাতিল হয়ে যাবে এবং আবার ফি পে করতে হবে 

. ভিসা আবেদন জমা দেয়া

ভিসা ফি জমা দেয়া হয়ে গেলে এখন আপনাকে ভিসা আবেদন কোন Indian Visa Application Center (IVAC) বা ‘ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্র (আইভ্যাক)’ – এ জমা দিতে হবে। এখন কোন কেন্দ্রেই কোন ধরণের ভিসার জন্যই অ্যাপয়েন্টমেন্ট বা ইটোকেন লাগে না।

এখন ঢাকাতে শুধুমাত্র একটাই আইভ্যাক । উত্তরা, মতিঝিল ,গুলশান, শ্যামলী সব কেন্দ্র সরিয়ে এক জায়গায় নিয়ে আসা হয়েছে। এখন   অফিসিয়াল নাম আইভিএসি, ঢাকা ( জেএফপি ) যেটা যমুনা ফিউচার পার্ক-এ অবস্থিত। বিস্তারিত নিচে

ভারতীয় ভিসা আবেদন কেন্দ্র, ঢাকা  (জেএফপি)
জি – এক , দক্ষিণ কোর্ট, যমুনা ফিউচার পার্ক, প্রগতি শরণী, বারিধারা, ঢাকা -২২২9, বাংলাদেশ .

Hot Line: 09612 333 666

E-mail: info@ivacbd.com

Website: www.ivacbd.com

. পাসপোর্ট সংগ্রহ করা

আপনি ভিসা আবেদন জমা দেয়ার সময় আপনাকে একটি প্রাপ্তি রশিদ দেয়া হবে যাতে আপনার নাম, পাসপোর্ট নম্বর, Web File No, ভিসা আবেদন ফি ইত্যাদিসহ একটা তারিখ দেয়া থাকবে। তারিখটি এভাবে দেয়া থাকে  Delivery on or after: 2019-09-17 এর মানে আপনি উল্লিখিত তারিখ বা এর পর যেকোনদিন নির্ধারিত সময়ে পাসপোর্ট ডেলিভারি নিতে পারবেন। যদি অনলাইনে রশিদে উল্লিখিত তারিখের আগেই পাসপোর্ট রেডি দেখায় তাতেও আগে দিবে না।  আর সব সময় যে রশিদে উল্লিখিত সময়েই পাসপোর্ট ডেলিভারি দেয়া হবে এমন কিন্তু নয়, অনেক সময় দেরিও হতে পারে। তাই আপনি আইভ্যাকে যাওয়ার আগে চেক করে নিন যে আপনার আবেদনের কি অবস্থা। সাধারণত ওরা আগেই এসএমএস এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয় যে আপনার পাসপোর্ট ডেলিভারির জন্য প্রস্তুত। এছাড়া আপনি আইভ্যাকের ওয়েবসাইটে আপনার ভিসার আবেদন ট্র্যাক করতে পারেন। এজন্য আপনাকে যেতে হবে এই ঠিকানায় এরপর আপনি যেই সেন্টারে আপনার আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন তা সিলেক্ট করুন।

এখন নিচের দেখানো বক্সে ‘Web file Number’ দিয়ে সাবমিট করুন। এখন আপনি আপনার ভিসা আবেদণের বর্তমান অবস্থা জানতে পারবেন।

এই IVAC ৩:০০ থেকে ৬:০০ পর্যন্ত পাসপোর্ট ডেলিভারি দিয়ে থাকে। নিচের ছবিটি দেখুন, এটি আমাকে দেয়া হয়েছিল ফর্ম জমা দেয়ার পর।

তো চলে আসুন আমাদের অফিসে এয়ার টিকেট এর জন্য,

যেকোনো দেশের এয়ার টিকেট, হোটেল বুকিং, হেলিকপ্টার সার্ভিস, টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং এবং প্যাকেজ ট্যুর করে থাকি। বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুন নিচের ঠিকানায়।

এয়ারওয়েজ অফিস

হ্যাপি আর্কেড শপিংমল, ৩য় তলা, স্যুইট নং #৩৪, রোড#০৩, হোল্ডিং নং:০৩ধানমন্ডি,ঢাকা১২০৫

মোবাইল: 01880155574