ডেনমার্কের ভিসা প্রসেসিং

1042

ডেনমার্কের ভিসা প্রসেসিং

পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মানুষ উন্নত জীবনের আশায় পাড়ি জমাচ্ছে উন্নত দেশগুলোতে। উত্তর ইউরোপের অন্যতম উন্নত দেশ ডেনমার্ক। প্রাকৃতিক নৈস্বর্গিক সৌন্দর্য্যের পাশাপাশি উন্নত নাগরিক জীবনের জন্য ডেনমার্ক সবার কাছে পরিচিত। ডেনমার্কের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে প্রচুর পরিমাণে দক্ষ জনশক্তি প্রয়োজন। উন্নত শিক্ষা ব্যবস্থা, সৌহার্দ্য পূর্ণ সামাজিক পরিবেশের জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে মানুষ ডেনমার্কে অভিবাসী হতে আগ্রহী। বাংলাদেশ থেকেও অনেকে ডেনমার্কে অভিবাসী হওয়ার জন্য আগ্রহী। ডেনমার্কের গ্রীণকার্ড পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় বিষয়াদি আপনার জন্য নিম্নে তুলে ধরা হলো।যেখানে ডেনমার্কে ভিসা আবেদন করার পক্রিয়া, কে বা কারা পারবেন আবেদন করতে, কখন কোথায় ও কীভাবে আবেদন করবেন ইত্যাদি বিষয় গুলো রয়েছে।

আবেদন প্রক্রিয়াঃ

যদি কেউ ডেনমার্কের গ্রীণকার্ডের জন্য যোগ্য মনে করে তবে তাকে নির্দিষ্ট আবেদন পত্রে আবেদন করতে হবে। এজন্য ঢাকাস্থ ডেনমার্ক দূতাবাসে যোগাযোগ করতে হবে। সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া শেষ করে ভিসা/গ্রীণকার্ড পেতে আবেদন করার পর থেকে ৪ থেকে ৫ মাস পর্যন্ত সময় লাগে। আবেদন রিফিউজ হলে আপিল করার সুযোগ আছে। ডেনমার্কের ভিসা/গ্রীণকার্ড পাওয়ার জন্য কোথাও কোন ধরনের ইন্টারভিউ দেওয়ার প্রয়োজন হয় না।

ঢাকাস্থ ডেনমার্ক দূতাবাসের ঠিকানাঃ

রয়েল ড্যানিশ এ্যাম্বাসী

হাউজ # ১, রোড # ৫১, গুলশান মডেল টাউন, ঢাকা – ১২১২।

ফোন: ০০ ৮৮০ (২) ৮৮২ ১৭৯৯

ফ্যাক্স: ০০ ৮৮০ (২) ৮৮২ ৩৬৫৮

ই-মেইল: dandhaka@citecheo.net

ওয়েব: http://bangladesh.um.dk/

খোলা ও বন্ধের সময়ঃ

রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার। সকাল ৮.০০ টা থেকে বিকাল ৪.০০ টা পর্যন্ত।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্রঃ

ভিসা আবেদনের জন্য সাধারণত যেসব কাগজপত্র জমা দিতে হয়।

  • ১০ কপি রঙিন ছবি।
  • সকল শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদপত্র।
  • কাজের অভিজ্ঞতার দলিলাদি।
  • বিভিন্ন প্রশিক্ষণের সনদ।
  • পাসপোর্টের ফটোকপি।
  • ইংরেজী ভাষার উপর কোন কোর্স করা থাকলে তার সার্টিফিকেট (ন্যূনতম ১ বছরের কোর্স)।
  • বিবিএ, এমবিএ অথবা ইংরেজী ভার্সন বা মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের জন্য ইংরেজী কোর্সের প্রয়োজন নেই।
  • এছাড়া এমন কর্মক্ষেত্র যেখানে ইংরেজী ভাষায় কথা বলার সুযোগ ছিল সেসব কর্মক্ষেত্রে কাজের অভিজ্ঞতার সনদপত্র।
  • আইইএলটিএস করাদের পয়েন্ট ৬.৫ হলে ইংরেজী কোর্সের সার্টিফিকেট বা ইংরেজী ভাষায় কথা বলা কর্মক্ষেত্রের সনদপত্রের প্রয়োজন নেই।
  • সেক্ষেত্রে আইইএলটিএস এর স্কোর ৬.৫ এর সনদপত্র/প্রমাণপত্র সংযুক্ত করতে হবে।

প্রিয় পাঠক আশা করি উপরের তথ্য গুলো আপনাদের অনেক কাজে আসবে। এবং সেঙ্গেন ভুক্ত ইউরোপের প্রতিটি দেশের বিভিন্ন ডকুমেন্টস গুলো দেখতে কেমন এই লেখাটি পড়তে চাইলে এখানে ক্লিক করুণ। এরকম সব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেতে আমাদের ফেসবুক পেজ লাইক করে রাখতে পারেন। আমাদের ফেসবুক পেজে যেতে এখানে ক্লিক করুণ।

উল্লেখ্য আপনাদের আরও উন্নতমানের সেবা দেওয়ার লক্ষে আমিওপারি টিম ইতালির রোমে তাদের অফিস উদ্ভদন করেছে কাজেই আমাদের অফিসের ঠিকানা ও আমাদের সেবা সমূহ জানতে এখানে ক্লিক করুণ। তাছারা প্রবাসের মাটিতে আপনাদের যেকোনো সমস্যা বা প্রশ্ন সরাসরি আমাদের সাথে টেলিফোনে বা এখানে কমেন্ট করার মাধ্যমে জেনে নিতে পারবেন।

 

প্রয়োজনীয় কাগজপত্রঃ

১। পাসপোর্ট (অন্তত ছয় মাসের মেয়াদ থাকতে হবে)
২। পাসপোর্ট সাইজ ছবি (২ কপি)
৩। ৪ মাসের ব্যাংক স্টেটমেন্ট (ব্যবসায়ীদের জন্য ব্যাংক ব্যাল্যান্স ১৫-২০ লক্ষ টাকা এবং চাকরিজিবিদের জন্য ৫-১০ লক্ষ টাকা থাকতে হবে)
৪। ব্যাংক সলভেন্সি লেটার
৪। ট্যাক্স রিটার্ন
৫. ট্যাক্স সনদ
৬। ট্রেড লাইসেন্স ইংরেজিতে ট্রান্সলেট করা (শুধুমাত্র ব্যবসায়ীদের জন্য)
৭। কোম্পানির লেটার প্যাড ও ভিজিটিং কার্ড
৮। ম্যারেজ সার্টিফিকেট (সস্ত্রীক ভ্রমনের ক্ষেত্রে) / বার্থ সার্টিফিকেট (অপ্রাপ্ত বয়স্কদের ক্ষেত্রে)
৯। অন্তত ৩-৪ টি দেশে ভ্রমন করা থাকতে হবে

 

যেকোনো দেশের এয়ার টিকেট, হোটেল বুকিং, হেলিকপ্টার সার্ভিস, টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং এবং প্যাকেজ ট্যুর করে থাকি। বিস্তারিত জানতে যোগাযোগ করুন নিচের ঠিকানায়।

zooFamily (community of aviation & travel)

রোড ৩, হোল্ডিং ৩, সুইট ৩৪,হ্যাপি আর্কেড শপিং মল,ধানমণ্ডি,ঢাকা ১২০৫, বাংলাদেশ। মোবাইল নাম্বার: ০১৭৬৮২৩২৩১১