অভ্যন্তরীণ রুটে বেড়েছে প্লেনযাত্রী, ঘাটতি সেবায়।

376

কম সময়ে গন্তব্য পৌঁছাতে উচ্চ ও মধ্যবিত্তের জনপ্রিয় বাহন এখন প্লেন। প্রতি বছরই দেশের অভ্যন্তরীণ রুটে আকাশপথে প্লেনযাত্রীর সংখ্যা কয়েকগুণ বাড়ছে। দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির সঙ্গে মানুষেরআর্থিক সচ্ছলতা বাড়ায় মূলত বদলেছে এ চিত্র।

তবে ক্রমবর্ধমান হারে যাত্রী বাড়লেও সেই তুলনায় বিমানবন্দরগুলোতে বাড়ছে না মানসম্মত সেবা। তাই বিমানবন্দরে অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারকে বিনিয়োগ বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন অ্যাভিয়েশন সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, স্বাধীনতার এত বছরেও দেশের অ্যাভিয়েশন খাতে বিনিয়োগও বাড়ছে না। যদি দেশের অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরে অবকাঠামো উন্নয়ন ও বন্ধ হওয়া বিমানবন্দর চালু করা যায়, তাহলে সরকার যেমন লাভবান হবে, তেমনি অভ্যন্তরীণ যোগাযোগেও হবে বিপ্লব।

অভিযোগ আছে, যাত্রীর চাপ বাড়লেও বাড়েনি বিমানবন্দরগুলোর হ্যান্ডলিং ক্যাপাসিটি ও অবকাঠামো সুবিধা। অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরে যে সিটিং ক্যাপাসিটি থাকা উচিত, সেই সুবিধাও নেই।টার্মিনাল ও ল্যাগেজ সুবধা বাড়ানো হলে যাত্রীরা মানসম্মত সেবা পাবে জানান সংশ্লিষ্টরা।

পরিসংখ্যান বলছে, ২০১৩ সালে যেখানে আকাশপথে যাত্রী ছিল ১৩ লাখ, ২০১৭ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ২৯ লাখে। আর ২০১৮ সালে প্রায় ৪০ লাখে গিয়ে পৌঁছেছে। বর্তমানে অভ্যন্তরীণ সাতটি রুটে সরকারি বেসরকারি মিলিয়ে সব উড়োজাহাজ সংস্থার প্রতিদিন গড়ে ১৯২টি ফ্লাইট চলাচল করে। আর যাত্রী ভ্রমণ করে প্রায় ১০ হাজার।

জানা যায়, সড়কপথে বিড়ম্বনা এড়িয়ে কম সময়ে গন্তব্য পৌঁছাতে যাত্রীরা এখন আকাশপথ বেছে নিচ্ছেন। সেই সঙ্গে সরকারি ও বেসরকারি সব বিমান পরিবহন সংস্থা এখন অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট বাড়াচ্ছে।

তথ্য বলছে, বর্তমানে ঢাকা থেকে সিলেট, চট্টগ্রাম, যশোর, সৈয়দপুর, রাজশাহী ও বরিশাল রুটে প্রতিদিন ফ্লাইট পরিচালনা করছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স, বেসরকারি ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স, রিজেন্ট এয়ারওয়েজ ও নভোএয়ার। কয়েকটি রুটে দিনে সর্বোচ্চ পাঁচটি ফ্লাইট পরিচালনা করছে কয়েকটি এয়ারলাইন্স।

বেসরকারি ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন বাংলানিউজকে বলেন, অ্যাভিয়েশন সেক্টরে সরকারের সুনজর দেওয়া প্রয়োজন। যদি ফুয়েলের দাম ও এয়ারপোর্ট ব্যবহার চার্জ কমানো হয় তাহলে খরচ কমবে। ফলে টিকিটের দাম আরও সহনীয় হবে।

নভোএয়ারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন (অব.) মফিজুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দরগুলোর অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারের নজর দেওয়া প্রয়োজন। যদি বিমানবন্দরগুলোর অবকাঠামো উন্নয়ন করা যায়, তাহলে অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন ঘটবে।

সুত্রঃ-বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বাংলাদেশে দিন দিন ভ্রমণ শিল্প আরও উন্নতও হচ্ছে। বিগত বছর গুলোর তুলনায় বর্তমান বছর গুলোতে পর্যটক কিংবা ভ্রমণকারীর সংখ্যা বাড়ছে। তার সাথে সাথে বাড়ছে মানসম্মত হোটেলের চাহিদা। এই বর্ধমান চাহিদার কথা মাথায় রেখে দিন দিন বাংলাদেশে মানসম্মত নতুন নতুন হোটেল তৈরি হচ্ছে। কিন্তু নতুন হতেন তৈরি হবার পরেও হোটেল নির্বাচনের ক্ষ্যেত্রে  ঝামেলা পোহাতে হচ্ছে ভ্রমণকারীকে। এই সমস্যা দূর করার জন্য বাংলাদেশের অন্ন্যতম শীর্ষস্থানীয় ভ্রমণ বিষয়ক ব্যাবসায় প্রতিষ্ঠান “ ট্র্যাভেল জু বাংলাদেশ লিমিটেড এবং জু ইনফোটেক বাংলাদেশ লিমিটেড ”  হোটেল বুকিং সম্পর্কিত সেবা ব্যবস্থা নিয়েছে। আমাদের এই ব্যবস্থার মাদ্ধ্যেমে একজন ভ্রমণকারী তার পছন্দমত হোটেল এবং কামরা বুকিং করতে পারবেন। তাছাড়া উক্ত ভ্রমণকারী তার বুকিং ক্রীত হোটেলের অন্য সকল সেবা সম্পর্কে সঠিক তথ্য পাবেন।

ট্র্যাভেল জু বাংলাদেশ লিমিটেড  বা জু ইনফোটেক বাংলাদেশ লিমিটেড
রোড ৩, হোল্ডিং ৩, সুইট ৩৪,
হ্যাপি আর্কদিয়া শপিং মল,
ধানমণ্ডি,ঢাকা ১২০৫, বাংলাদেশ।
মোবাইল নাম্বার: ০১৯৭৮৫৬৯২৯০– ৯১
সকাল ১০.৩০ থেকে রাত ৮.৩০ পর্যন্ত (সপ্তাহে ৭ দিন খোলা)